মাওয়ায় যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে : বিপাকে লঞ্চ মালিকরা!

mawaaaaপদ্মা নদীতে লঞ্চডুবির ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তারা এবার নড়েচড়ে বসেছেন। বলতে গেলে খুবই তৎপর হয়ে পড়েছেন তারা।

কিন্তু যাত্রীদের ভোগান্তি কমছে না। বিপাকে আছেন লঞ্চ মালিকরাও। সরেজমিন দেখা গেছে, মাওয়া থেকে কাওড়াকান্দি নদী পারাপারের ক্ষেত্রে আরোপ করা হয়েছে বিভিন্ন ধরনের আইনকানুন। ফিটনেস ছাড়া চলতে দেওয়া হচ্ছে না কোনো লঞ্চ। অতিরিক্ত যাত্রী নিলে আদায় করা হচ্ছে জরিমানা।

তবে এসব নিষেধাজ্ঞা আরোপের কারণে যাত্রীরা পড়েছেন চরম দুর্ভোগে, আর লঞ্চ-মালিকরা পড়েছেন বিপাকে। মাওয়া-কাওড়াকান্দিরুটে রয়েছে মোট ৮৭টি লঞ্চ, যা দিয়ে প্রতিদিন নদী পারাপার হতেন হাজার হাজারমানুষ। কিন্তু এখন সেই চিত্র বদলে গেছে।
mawaaaa
বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তারা লঞ্চের ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী ওঠাতে দিচ্ছেন না গত কদিন ধরে। এপ্রসঙ্গে লঞ্চ মালিক মোশারেফ হোসেন নসু বলেন, ‘আমরা বিআইডব্লিউটি এর কর্মকর্তারাদের সব নির্দেশনা পালন করতে রাজি আছি। কিন্তু আমাদের দিকটাও তাদের ভেবে দেখতে হবে। একটি লঞ্চে ১০০-র বেশি যাত্রী উঠতে দেওয়া হচ্ছে না, যা দিয়ে এই ব্যবসা টিকিয়ে রাখা কষ্টসাধ্য।’ তিনি বলেন, ‘১০০ যাত্রী নিয়ে ভাড়া পাচ্ছি ৩ হাজার ৩০০ টাকা। এর মধ্যে ফুয়েল খরচ ১ হাজার ২০০ টাকা। স্টাফ খরচ আছে আরো ১ হাজার টাকা। তাহলে আমরা ব্যবসা করব কী? আবার আবহাওয়া একটু খারাপ হলেই বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে লঞ্চ চলাচল।

এর ফলে লঞ্চ-মালিকদের ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে। এ ছাড়া নতুন করে আমাদের লঞ্চের ফিটনেস পরীক্ষা করা হচ্ছে। অনেকগুলো লঞ্চের ফিটনেস বাতিলের কথা বলা হচ্ছে। এখন প্রশ্ন করতে চাই কর্মকর্তাদের কাছে, এখন কেন বলা হচ্ছে আমাদের বেশিরভাগ লঞ্চেরই ফিটনেস নেই। যখন আপনারা এসব লঞ্চের অনুমতি দিয়েছিলেন, তখন কি আপনারা ফিটনেস চেক করেননি?’

এসব কারণে বর্তমানে মাওয়া-কাওড়াকান্দি রুটে চলাচল করছে সীমিতসংখ্যক লঞ্চ। যার ফলে এই রুটের যাত্রীরা পড়েছেন চরম দুর্ভোগে। প্রতিদিন লক্ষাধিক যাত্রী পারাপারের এই ঘাট দিয়ে লঞ্চ যোগে পার হতে পারছেন ২০ হাজার থেকে ২৫ হাজার যাত্রী।

বাকি যাত্রীরা শরণাপন্ন হচ্ছেন ফেরির। যাত্রী আনিসুল বলেন, ‘ফেরিতে পার হতে অনেক সময় লাগে। সেই তুলনায় লঞ্চে সময় লাগে অনেক কম। কিন্তু লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী উঠতে না দেওয়ার ফলে ফেরিতে পারাপার হতে বাধ্য হচ্ছি। তবে ফেরিতে উঠতে ইজারাদারদের দিতে হচ্ছে জনপ্রতি ১০ টাকা করে। ভাড়া দেওয়া লাগছে ২৫ টাকা। সরকারি ঘাটে ইজারা দিচ্ছি আবার ভাড়াও দিচ্ছি-বিষয়টা ঠিক বুঝলাম না।’ তিনি আরো বলেন, ‘দেখি বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তাদের তোড়জোড় কত দিন থাকে।

আজ লঞ্চ ডুবছে, মানুষ মরছে, তাই তাদের টনক নড়েছে। কদিন পরে যখন সবাই লঞ্চডুবির ঘটনাও ভুলে যাবে, তখন তাদের তৎপরতাও থেমে যাবে। যদি তা-ই হয়, তাহলে বুঝব তারা জনগণের সুরক্ষার কথা চিন্তা করেন না।’

বাবার্তা

Leave a Reply