শহরের মানিকপুর এলাকায় যুবলীগ কর্মী গুলিবিদ্ধ

onkonমুন্সীগঞ্জ শহরের মানিকপুর এলাকায় প্রতিপক্ষের গুলিতে যুবলীগ কর্মী অঙ্কন (৩২) গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। শুক্রবার রাত ১১টার দিকে জেনারেল হাসপাতাল সংলগ্ন সড়কে এ ঘটনা ঘটে। অঙ্কনের ওপর হামলাকারীরা স্থানীয় যুবলীগ নেতা-কর্মী বলে জানা গেছে। ঘটনার পরপরই গুলিবিদ্ধ যুবলীগ কর্মী অঙ্কনকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়ার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে যুবলীগ কর্মী অঙ্কন গুলিবিদ্ধ হওয়ায় মুন্সীগঞ্জ শহরের যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ সর্তক অবস্থায় রয়েছে।

দলীয় সূত্র জানায়, মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাসের ঈদ শুভেচ্ছার অর্ধশতাধিক ফেস্টুন কেটে ফেলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে যুবলীগ কর্মী অঙ্কনকে গুলি করেছে প্রতিপক্ষরা।
onkon
যুবলীগ কর্মী অঙ্কন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের অনুসারী। বৃহস্পতিবার সন্ধায় শহরের গণপূর্ত ভবনের সামনে মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাসের ঈদ শুভেচ্ছার ফেস্টুন কেটে ফেলে যুবলীগ কর্মী শাহজালাল ও তার দলবল।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতেই যুবলীগ কর্মী আবু বকর সিদ্দিক বাদী হয়ে শাহজালালসহ ৯ জনকে আসামি করে সদর থানায় মামলা রুজু করেন।

দলীয় সূত্র জানায়, শুক্রবার রাতে যুবলীগ কর্মী অঙ্কন মানিকপুরস্থ নিজ বাসা থেকে বের হলে মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের এমপির অনুসারী যুবলীগ কর্মীরা তার সঙ্গে তর্কবির্তকে লিপ্ত হয়। এরপরই এমপির অনুসারী যুবলীগ কর্মীরা অঙ্কনকে গুলি করে।

যুবলীগ কর্মী পাভেল জানান, এমপির ফেস্টুন কেটে ফেলার ঘটনায় অঙ্কন জড়িত নয়। শাহজালালদের সঙ্গে তার কোনো সর্ম্পক নেই।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়ারদৌস হাসান ঘ্টনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল ও হাসপাতালে পুলিশের টিম পাঠানো হয়েছে। ঘটনার তদন্ত করা হচ্ছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর
==============

যুবলীগ কর্মী গুলিবিদ্ধ উত্তেজনা

শুক্রবার রাতে শহরের মানিকপুরে যুবলীগ কর্মী (২৮) গুলিবিদ্ধ হযেছে। তাকে মূমূর্ষু অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এই ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

অঙ্কনের পিতা সিরাজুল ইসলাম জানান, রাত ১০টার দিকে যুবলীগ কর্মী আবু বকর সিদ্দিক মিথুন দলবল নিয়ে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে অঙ্গনের কোমরের নিচে রিভলবার দিয়ে গুলি করে পালিয়ে যায়। জেলা শহরে ব্যস্ততম এলাকায় এই ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি আবুল খায়ের ফকির জানান, কি কারণে গুলি করা হয়েছে তা এখনও নিশ্চিত করা যায়নি। অপরাধীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মুস্তাফিজুর রহমান, লিঙ্কনের দেহের ভেতরে গুলি রয়েছে। জরুরী অপারেশন প্রয়োজন। সঙ্কটাপন্ন হওয়ায় তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, ঈদ ও পুজোর শুভেচ্ছা সংবলিত সদর আসনের সংসদ সদস্যা এ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তির কিছু ফেস্টুন-প্ল্যাকার্ড বৃহস্পতিবার বিনষ্ট করা হয়। এই ঘটনায় আবু বকর সিদ্দিক মিথুন বাদী হয়ে সদর থানায় মামলা করেন। এই বিরোধ নিয়েই এই গুলির ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply