স্মরণ : জাপান আওয়ামী লীগ স্মরণ করল বঙ্গবন্ধুকে

রাহমান মনি: যথাযথ মর্যাদা ও বিনম্র শ্রদ্ধায় স্বাধীনতার মহান স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করেছে জাপান শাখা আওয়ামী লীগ। একই সঙ্গে স্মরণ করা হয়েছে ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট এবং ২০০৪ সালের ২১ আগস্টের নারকীয় ঘটনায় জীবন উৎসর্গকারীদের।

দিবস দুটির তাৎপর্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাপান শাখা এক শোক সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। জাতীয় শোক দিবস পালনে বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রণ জানানো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী (এমপি) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন এবং বাংলাদেশ থেকে আগত কেন্দ্রীয় উপকমিটির সহসম্পাদক, সাবেক ছাত্রনেতা খলিলুর রহমান।
সভার প্রাক্কালে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে সারিবদ্ধভাবে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করে ভালোবাসা ও গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করা হয়।

২৩ আগস্ট রোববার টোকিওর ওজি হোকু তোপিয়া হলে জাপান আওয়ামী লীগের সভাপতি সালেহ মো. আরিফের সভাপতিত্বে সভাটি পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আসলাম হীরা। সূচনা বক্তব্য রাখেন চৌধুরী রহমান লিটন।

সভার শুরুতে ১৫ আগস্ট ’৭৫ এবং ২১ আগস্ট ’০৪ বর্বর হত্যাকাণ্ডসহ স্বাধিকার আন্দোলনে জীবন উৎসর্গকারী সকলের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

দিবসটির তাৎপর্যে রাজনৈতিক বক্তব্য রাখেন রাসেল মাঝি, নাজমুল হোসেন রতন, আব্দুর রাজ্জাক, রফিকুল ইসলাম মনির, সোহেল রানা, আব্দুল কুদ্দুস, মাসুদ আলম, রায়হান কবির ভুঁইয়া, মোতালেব শাহ, আইয়ুব প্রিন্স, কাজী ইনসানুল হক, আব্দুল্লাহ মাসুদ টুটুল (স্বাচিপ নেতা), জাহিদ হোসেন, মাসুদুর রহমান মাসুদ, হারুনুর রশিদ হারুন, মোল্লা আলমগীর, সনত বড়–য়া, ফাহমিদা জাবিন সোমা (রাষ্ট্রদূত পতœী) প্রমুখ।

বক্তারা বঙ্গবন্ধু মানে বাংলাদেশ অভিহিত করে বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের জাতীয় পরিচয় এনে দিয়েছেন বলেই আজ আমরা বাঙালি। বঙ্গবন্ধু শুধু একজন ব্যক্তিই নন, একটি প্রতিষ্ঠান, জাতীয় আদর্শ, বাংলাদেশ নামক দেশটির ইতিহাস, কাজেই বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে ব্যক্তি বঙ্গবন্ধুকে শেষ করা হলেও বাংলাদেশিদের জাতীয় পরিচয়কে ধ্বংস করা যায়নি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে হত্যা করা যায়নি। মুছে ফেলা যাবে না বাংলাদেশের ইতিহাস থেকেও। যতোদিন বাংলাদেশ নামক দেশটি থাকবে, থাকবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন সৈনিকও ততোদিন বঙ্গবন্ধু বাংলার ইতিহাসে চির অমøান হয়ে থাকবেন। বক্তারা বাংলাদেশে আর যেন কোনো ১৫ আগস্ট ঘটাতে না পারে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখার জন্য বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকদের অনুরোধ জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে খলিলুর রহমান বলেন, খালেদা জিয়া ১৯৯১ সালে প্রথমবারের মতো ক্ষমতায় আসার পর, এমনকি তারও আগে ১৯৮২তে রাজনীতিতে আসার পরও কিন্তু ১৫ আগস্ট জন্মদিন পালন করেননি। ১৯৯৬ সালে ২১ বছর পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর তনয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকেই হঠাৎ করেই ১৫ আগস্ট জন্মদিন পালন করা শুরু করে দিলেন। কেন? জন্মদিন কি হঠাৎ করেই পরিবর্তন হয়ে ঘটা করে পালন করতে হয়? তাও আবার যে মহান ব্যক্তিটির জন্য খালেদা জিয়া স্বামী সংসার ফিরে পেয়েছেন তারই নির্মম হত্যাকাণ্ডের দিনে? এসবই ৭৫-এর ধারাবাহিকতা।

খলিলুর রহমান বলেন, ১৫ আগস্ট এর দায়িত্ব স্বীকার করে, সব কিছু বাদ দিয়ে দায়িত্ব নিয়ে ভুল স্বীকার করে নিলেই শুধু বিএনপির অস্তিত্ব থাকবে নতুবা নয়। আমাদের ভিশন ’২১ এবং ’৪১ ডিজিটাল জনগণ গ্রহণ করেছে। কাজেই এটার বাস্তবায়ন করতে হলে আওয়ামী লীগকেই ক্ষমতায় থাকতে হবে। এই ক্ষেত্রে প্রবাসীদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করার সুযোগ রয়েছে। অতীতের মতো আপনারা আপনাদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশকে একটি আধুনিক রাষ্ট্রে পরিণত করবেন আওয়ামী লীগ সরকারের ছত্রছায়ায়।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য প্রদানে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধুর জাপান সফরের মধ্য দিয়ে দুই দেশের এক দৃঢ় সম্পর্ক তৈরি হয় যা আজও অটুট রয়েছে এবং ভবিষ্যতে আরও সুদৃঢ় হবে। বঙ্গবন্ধু একটি প্রতিষ্ঠান। বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু কোনো দল বা গোষ্ঠীর নয়। সমগ্র বাংলাদেশিদের।
রাষ্ট্রদূত এ সময় ‘বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনীর জাপানি ভাষায় অনুবাদ লিপি’র একটি কপি প্রধান অতিথির হাতে তুলে দেন, যা ওয়াতা মাহাব অনুবাদ করে একটি কপি ২ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন। রাষ্ট্রদূত ১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধুর জাপান সফরের সময়ের ভিডিওচিত্র খুব শিগগিরই প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করার আশাবাদ ব্যক্ত করে প্রবাসীদের সহযোগিতা কামনা করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী (এমপি) বলেন, ১৫ আগস্ট আসলে কোনো সাধারণ হত্যাকাণ্ড নয়। অনেকে এটাকে কিছু বিপদগামী সৈনিক কর্তৃক একটি অভ্যুত্থান বলে থাকেন। ব্যাপারটা আসলে তা নয়। ১৫ আগস্ট পরিকল্পিত একটি হত্যাকাণ্ড। ১৫ আগস্ট হত্যা করা হয়েছে বীরাঙ্গনাদের আত্মত্যাগকে, পদদলিত করা হয়েছে স্বনির্ভর বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নকে এবং একইসঙ্গে কলঙ্কিত করা হয়েছে আইনের শাসনকে। সেই সঙ্গে বাঙালি জাতির অহঙ্কারের জায়গাকে খাটো করা হয়েছে।

প্রধান অতিথি বলেন, বাংলাদেশের মহান নেতাদের হত্যা করে তাদের স্থানে বসানো হয়েছে কুখ্যাত রাজাকার শাহ আজিজকে। আত্মস্বীকৃত খুনিদের বিদেশের দূতাবাসে চাকরি দেয়া হয়েছে, বন্ধ রাখা হয়েছে হত্যাকাণ্ডের বিচারের প্রক্রিয়া।

সভাপতির বক্তব্যে জাপান আওয়ামী লীগের সভাপতি সালেহ মো. আরিফ সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে ভবিষ্যতে প্রবাসীদের সকলের অংশগ্রহণে আরও বৃহৎ আকারে দিবসটি পালন এবং প্রধানমন্ত্রীর ওপর আস্থা রেখে তারই দিকনির্দেশনায় দলকে আরও সুসংহত করে সংগঠন পরিচালনায় প্রবাসীদের সাহায্য কামনা করেন।
সভায় ১৯৭৫-এর নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সদস্যবৃন্দ, ২১ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের শিকার আইভী রহমানসহ জীবন উৎসর্গকারী সকলের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন।

আরিফ-হিরা কমিটিই একমাত্র এবং বৈধ কমিটি জাপানের আওয়ামী রাজনীতিতে হঠাৎ করে উড়ে আসা আরেকটি গ্রুপ সক্রিয়, এমতাবস্থায় কোন গ্রুপটিকে বৈধ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া যাবে এমন প্রশ্নের উত্তরে সাবেক ছাত্রনেতা খলিলুর রহমান বলেন, আওয়ামী লীগ একটি বৃহৎ দল হিসেবে মতপার্থক্য থাকতেই পারে, কেউ যদি ভুল বুঝে এবং শুধরিয়ে পুনরায় ফিরে আসে তবে আপনাদের উচিত তাদের ফিরিয়ে নেয়া। এ ব্যাপারে আপনাদেরও উচিত আরও উদার হওয়া, এরপর আর বলার অপেক্ষা রাখে না কোনটি আসল কমিটি। সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী (এমপি) বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক যে কমিটিতে উপস্থিত থাকেন, বক্তব্য রাখেন, সেই কমিটি যে আসল তা কি আর বলার অপেক্ষা রাখে? বুঝে নিতে হয়। উল্লেখ্য, প্রেসিডিয়াম সদস্য নুহ আলম লেনিন এবং কেন্দ্রীয় নেতা ডা. বদিউজ্জামানও একই কথা বলে গেছেন জাপান সফরে। কাজেই আরিফ-হিরা কমিটিই একমাত্র এবং বৈধ কমিটি হিসেবে বিবেচিত এবং বাকিদের এই কমিটিকে মেনে নিয়ে কাজ করে যেতে হবে।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply