শিমুলিয়ায় থাকছে ওয়াচ টাওয়ার কন্ট্রোল রুম সিসিটিভি

ঈদে শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌপথে যাত্রী নিরাপত্তা
ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এবারও মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে স্থাপন করা হচ্ছে সিসি ক্যামেরা, ওয়াচ টাওয়ার ও পুলিশ কন্ট্রোল রুমসহ নানা ব্যবস্থা। বুধবার শিমুলিয়া ঘাটের বিআইডাব্লিউটিএর কার্যালয়ে জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির বিশেষ ঈদ প্রস্তুতি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

মুন্সীগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক এডিসি (রাজস্ব) মো. আব্দুল কুদ্দুস সরকারের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. খালেকুজ্জামান, উপজেলা চেয়ারম্যান মো. ওসমান গণি তালুকদার, এএসপি (শ্রীনগর সার্কেল) মো. সামসুজ্জামান বাবু, এএসপি (ট্রাফিক) মো. কামরুজ্জামান, লৌহজং থানার ওসি মোল্লা জাকির, বিআইডাব্লিউটিসির এজিএম এস এম আশিকুজ্জামানসহ বিআইডাব্লিউটিএ, বাস, সিবোট, লঞ্চ, ট্রলার মালিক শ্রমিক প্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডাররা।

ইউএনও মো. খালেকুজ্জামান জানান, দেশের দক্ষিণবঙ্গের ২১ জেলার মানুষ শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌপথ পাড়ি দিয়ে স্বজনদের সাথে ঈদ করতে গ্রামের বাড়ি যায়। তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সভায় ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। যাত্রীদের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গত ঈদের মতো এবারও বসানো হবে সিসিটিভি। এটি নিয়ন্ত্রণ করা হবে ঘাটে স্থাপিত অস্থায়ী পুলিশ কন্ট্রোল রুম থেকে। এ ছাড়া অস্থায়ী ওয়াচ টাওয়ার থেকে দূরবীক্ষণ যন্ত্রের সাহায্যে যাত্রীদের নিরাপত্তার বিষয় নজরদারি করা হবে। কোথাও কোনো বিপদ বা অব্যবস্থাপনা নজরে এলে সঙ্গে সঙ্গে সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী উপস্থিত হয়ে যাত্রীদের সহযোগিতা করবে। যাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য পুলিশ, আনসার, কোস্ট গার্ড, নৌপুলিশ, কমিউনিটি পুলিশ ও র‌্যাবের তিন শতাধিক সদস্য কাজ করবেন। তবে পরিশ্রমের কথা চিন্তা করে রোভার স্কাউট সদস্যদের এবার বাদ দেওয়া হয়েছে। পকেটমার, মলম পার্টির সদস্য ও ছিনতাইকারীদের শনাক্ত করতে সাদা পোশাকেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কাজ করবেন।

এএসপি (শ্রীনগর সার্কেল) মো. সামসুজ্জামান জানিয়েছেন, সভায় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বাস, লঞ্চ, সিবোট ও ট্রলারে যাতে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা না হয় সে ব্যাপারে প্রশাসনের কঠোর নজরদারি থাকবে। পরিবহন ও নৌযানে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হবে না বলে সভায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। ঈদের সময় ঘাট এলাকা ও মহাসড়কে যাতে যানজট লাগতে না পারে, সে জন্য আগামী ২১ সেপ্টেম্বর রাত থেকে সব ধরনের ট্রাক ১০ কিলোমিটার দূরে শ্রীনগর উপজেলার ছনবাড়ী নামক স্থানে আটকে দেওয়া হবে। তবে গাড়ির চাপ না থাকলে অবস্থা বুঝে সেখান থেকে কিছু কিছু ট্রাক পার করা হবে। মাওয়া বন্দর কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানান, ঈদ উপলক্ষে যাত্রীদের জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। বৃদ্ধ ও শিশুদের কথা বিবেচনা করে ঘাটে বিশেষ টয়লেটের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তবে এবার রোভার স্কাউট থাকছে না। তাই আনসারের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। সব মিলিয়ে ঈদে যাত্রীরা নিরাপদেই গন্তব্যে পৌঁছতে পারবে।

বিআইডাব্লিটিসির মাওয়ার এজিএম এস এম আশিকুজ্জামান জানান, ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের নিরাপদ পারাপারে পর্যাপ্তসংখ্যক ফেরি থাকছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে নাব্যতা সংকট পুরোপুরি দূর হয়ে যাবে। তাই ঈদে নির্বিঘ্নেই ফেরি পার হতে পারবেন যাত্রীরা।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply