রাজনীতি: পকেট কমিটিই করতে যাচ্ছে মুন্সীগঞ্জ বিএনপি!

মোজাম্মেল হোসেন সজল: দেশব্যাপী হরতাল-অবরোধের পর অদৃশ্য হয়ে পড়া মুন্সীগঞ্জের বিএনপি ঘুরে দাঁড়ানোর প্রাণপন চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছেন। দল পুনর্গঠন প্রক্রিয়া শুরু হওয়ায় নতুন উদ্যমে নেতাকর্মীরা সংগঠিত হচ্ছেন। কিন্তু সেই পকেট কমিটির গঠনের দিকেই যাাচ্ছে স্থানীয় বিএনপির বিভিন্ন ইউনিটের কমিটি। এ ক্ষেত্রে এগিয়ে রয়েছে শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের নেতৃত্বে শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলা দুইটির বিএনপির কমিটি। তবে, তৃণমূলের নেতাকর্মীরা চান-কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি গঠন, পকেট কমিটি নয়। শক্তিশালী সংগঠনের লক্ষ্যে কাউন্সিলের বিকল্প নেই।

তবে, ত্যাগী, সাহসি ও দলীয় কর্মকান্ডে যারা সময় দিতে ইচ্ছুক তাদের এবার কমিটিতে আনা হচ্ছে বলে বিএনপির বিভিন্ন সভায় জেলার শীর্ষ নেতৃবৃন্দ জোর দিয়ে বলছেন। তবে, বিভিন্ন উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটির পুরনোদের কেউ কেউ স্ব-পদে বহাল থাকলে দলের অবস্থা আবারও একই রকম হবে বলে তৃণমূলের কর্মীদের অভিমত। ওইসব ইউনিটের গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোর অধিকাংশই রাজনীতিতে সক্রিয় নয়। এদের অনেকেই গত আন্দোলনে রাজনীতির মাঠে দেখা মিলেনি। শহর ও মুক্তারপুর সেতু এলাকা ছাড়া বিভিন্ন উপজেলাগুলোতে নেতাদের মাঠে দেখা মেলেনি। এমনকি, উপজেলা পর্যায়ের শীর্ষ নেতারা মামলা-মোকদ্দমার ভয়ে ছাত্রদল-যুবদল নেতাকর্মীদের মাঠে নামতে দেয়নি এমন অভিযোগও রয়েছে। হরতাল-অবরোধের সময় শীর্ষ নেতাদের খোঁজেও পায়নি তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। পদ-পদবী নিয়ে ঢাকায় বসে রাজনীতি করা এসব নেতাদের মোবাইল ফোনটিও ছিল বন্ধ। এতে করে নেতাদের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলেন কর্মীরা। আবার দলীয় কোন্দলে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে শ্রীনগর, গজারিয়া ও সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপি।

এদের মধ্যে ২০০৯ সালে উপজেলা বিএনপির কমিটির গঠনের পর ওই উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. আব্দুল্লাহ রাজনীতি থেকে হারিয়ে যায়। আন্দোলনসহ দলীয় কর্মকান্ডে তিনি রয়েছেন অনুপস্থিত। একই উপজেলার সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস ধীরেণকে নিয়েও রয়েছে বিতর্ক। জাতীয় পার্টি থেকে আগত এ নেতা ২০১৩ সালের ২২ শে ডিসেম্বর মাসে শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিলে অতিথি হয়ে যোগদান ও মুন্সীগঞ্জ-১ (শ্রীনগর-সিরাজদিখান) আসনের সংসদ সদস্য ও শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের সঙ্গে একই মঞ্চে বক্তব্য রাখায় দলের মধ্যে তীব্র অসন্তোষ দেখা দেয়।

ওদিকে, দলীয় সিদ্ধান্ত ছাড়া আওয়ামী লীগের সম্মেলনে আব্দুল কুদ্দুস ধীরেণ আওয়ামী লীগের সম্মেলনে যোগদান নিয়ে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। এ ঘটনায় তাকে জেলার শীর্ষ নেতৃবৃন্দ নিন্দা ও ধিক্কার জানায়। এ ঘটনার প্রতিবাদে ৩ দিন পর ওই বছরের ২৫ শে ডিসেম্বর বেলা ১১ টার দিকে সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সভাপতির পদসহ দলের সকল সদস্য পদ থেকে বহিস্কারের দাবিতে স্থানীয় বিএনপি প্রতিবাদ সভা করেন।

সিরাজদিখান বাজারস্থ উপজেলা বিএনপির দলীয় অফিসে এ প্রতিবাদ সভা হয়। এর আগে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপিকে ল-ভ- করে দেয়ার অভিযোগে ওই বছরের ৩১ শে জুলাই শহরস্থ জেলা বিএনপির কার্যালয়ে এক জরুরি সভায় সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস ধীরণ ও সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. আব্দুল্লাহকে দলীয় সকল পদ থেকে বহিস্কার করে জেলা বিএনপি। ওই বহিস্কার ও সাংগঠনিক কর্মকান্ড স্থগিত করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে সিরাজদিখান উপজেলায় সাবেক প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহা এবং বহিস্কৃত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক দু’গ্রুপের মধ্যে সিরাজদিখানে পাল্টা-পাল্টি মিছিল, সমাবেশ, কুশপুত্তলিকা দাহ ও শোডাউন করা হয়। প্রতিপক্ষ মিজানুর রহমান সিনহার উপর হামলাও চালায়। এ ঘটনায় মিজান সিনহা সমর্থক সিরাজদিখান উপজেলা শ্রমিক দলের আহবায়ক মনির হোসেন বাদী হয়ে প্রতিপক্ষের ৬ নেতাকর্মীকে আসামি করে সিরাজদিখান থানায় মামলা দায়ের করা করেন। এরপর একই বছরের ৫ ই আগস্ট বিকেলে রাজধানীর পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে উপজেলা বিএনপির বহিস্কৃত সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. আব্দুল¬াহকে লাঞ্চিত করা হয়। তাকে বিএনপি অফিস থেকে টেনে-হেঁচড়ে বাইরে আনার চেষ্টা করা হয়। এরপর কেন্দ্রীয় বিএনপি একই বছরের ২৩ শে আগস্ট তাদের বহিস্কারকে অবৈধ ঘোষণা করে জেলা বিএনপিকে চিঠি দেয় । কেন্দ্রের এ আদেশে অসন্তুষ্ট হন মিজানুর রহমান সিনহা।

এদিকে, বিগত আন্দোলনেও রাজপথে ধীরেণ ও আব্দুল্লাহ’র দেখা মেলিনি বলে সেখানকার দলীয় কর্মীদের অভিযোগ। এ অবস্থায় সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির অবস্থা এখন একেবারে শোচনীয়। সেখানকার কর্মীরা শক্তিশালী কমিটি চাচ্ছেন।

শ্রীনগরে শুধুমাত্র একবার বিএনপি রাজপথে নেমেছিল। অভিযোগ রয়েছে, তারা ওই কর্মসূচি পালনে উপজেলা আওয়ামী লীগের এক শীর্ষ নেতাকে ম্যানেজ করে মাঠে নামেন। এখানে শ্রীনগরের অধিবাসী কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রভাব পড়ায় উপজেলা বিএনপি খন্ড খন্ড গ্রুপে বিভক্ত। জাতীয় পার্টির শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বিএনপি এসেও স্থানীয় বিএনপিকে সংগঠিত করতে পারেননি। বরং স্থানীয় বিএনপি আরও বেশি ভাঙনের মুখে পড়েছে। শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন নিজেই গ্রুপ হওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃস্টি হয়েছে। দলছুট এ নেতাকে ত্যাগী নেতারা আজও মেনে নিতে পারেননি বলে জানা গেছে।

এদিকে, বিগত আন্দোলনে খবরদারিতে ব্যস্ত ওইসব কেন্দ্রীয় কোন নেতাকে মাঠে দেখা যায়নি। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন সেখানে তেমন কোন প্রভাব ফেলতে পারছেন না। ঘণ ঘন দল পরিবর্তন করায় বিএনপির তৃণমূলের নেতাকর্মীরা তাকে মেনে নিতে পারেনি আজও। আবার জাতীয় পার্টির কাউকে কাউকে প্রাধান্য দেয়ার বিষয়টি স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। তবে, ওই উপজেলার কমিটি পুনর্গঠনের দায়িত্ব তার উপর পড়ায় এখন শাহমোয়াজ্জেম মুখী হচ্ছেন পদ-পদবী পাওয়ার নেতাকর্মীরা।

টঙ্গীবাড়ী ও লৌহজংয়ে একই অবস্থা। তারাও একদিনের জন্যও কোন কর্মসূচি পালন করেননি। সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহার নিজ এলাকা লৌহজংয়ে কলমা ইউনিয়নেই দলীয় কোন্দল ভয়াবহ। সেখানকার মূলদল, যুবদল, ছাত্রদল, মহিলাদল ও স্বেচ্চাসেবক দলের নেতারা একযোগে পদত্যাগও করেছিল। পরে তিনি নিজেই ওই ইউনিয়নের বিএনপির আহবায়ক হয়ে নতুন কমিটি গঠন করেন। উপজেলা যুবদলের সভাপতি হাবিবুর রহমান অপু চাকলাদারের স্বেচ্ছাচারিতার কারনে ওইসব কমিটির নেতৃবৃন্দ দল থেকে একযোগে পদত্যাগ করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। গেল উপজেলা পরিষদের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গজারিয়া উপজেলা বিএনপি লন্ডভন্ড হয়ে পড়ে। জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই জেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমানকে প্রার্থী দিলে সেখানে একই পদে উপজেলা যুবদলের সভাপতি আবদুল মান্নান মনা প্রার্থী হলে বিরোধ তুঙ্গে উঠে। বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পড়ে। সে বিরোধ এখনও মেটিনি। উপজেলা বিএনপির সভাপতি প্রফেসর গিয়াসউদ্দিনও আলাদা গ্রুপের দলনেতা। উপজেলা বিএনপির কোন কর্মকান্ডে তার দেখা মিলছে না। টঙ্গীবাড়ী উপজেলা বিএনপিরও কোন কর্মকান্ড নেই। মুন্সীগঞ্জ-২ (টঙ্গীবাড়ী ও লৌহজং) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান সিনহার উপর তাদের দলীয় কর্মকান্ড নির্ভরশীল।

তবে, বিগত আন্দোলনে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার সন্তান জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রিপন মল্লিক, টঙ্গীবাড়ী উপজেলা বিএনপির সভাপতি খান মনিরুল মনি পল্টন ও সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন দোলনের নেতৃত্বে সেখানকার নেতাকর্মীদের শহর ও মুক্তারপুর কেন্দ্রীক কিছু কিছু কর্মসূচিতে জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাইয়ের সঙ্গে দেখা গেছে।

ওদিকে, মুন্সীগঞ্জের যারা কেন্দ্রীয় কমিটির বিভিন্ন পদ-পদবী বহন করছেন তারা বিগত কর্মসূচি পালনে মুন্সীগঞ্জের কোন কর্মসূচি পালনে দেখা মেলেনি। কিন্তু তাদের তদবিরে বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো কোন রকম কাউন্সিল ছাড়া এবং ঢাকা থেকে হওয়ায় মুন্সীগঞ্জের স্থানীয় রাজনীতিতে তার ব্যাপক প্রভাব পড়ে। ওইসব কমিটির নেতাদের কারও চোঁখে পড়েনি স্থানীয় কর্মসূচিতে।

এদিকে, বিগত আন্দোলনে জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর মল্লিক রিপনের উপস্থিতিতে মুন্সীগঞ্জ শহর ও মুক্তারপুর সেতু এলাকায় দলীয় নেতাকর্মীদের ব্যাপক উপস্থিতি দেখা যায় না। কিন্তু তাদের অনুপস্থিতিতে আন্দোলনে ভাটা পড়ে। তবে, যুবদল ও ছাত্রদল তাদের নিজস্ব কর্মসূচিগুলো ব্যাপকভাবে পালন করতে দেখা গেছে। আন্দোলনে মামলার তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক স¤্রাট ইকবাল হোসেন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক আহবায়ক রফিকুল ইসলাম মাসুম, শহর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আল-আমিন। এদের মধ্যে আল-আমিনকে ভ্রাম্যমান আদালত সাতদিনের সাজাও দিয়েছিলেন। জেলা যুবদলের সভাপতি তারিক কাশেম খান মুকুল ও জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মো. মাসুদ রানার নেতৃত্বে শহরে পৃথক কর্মসুচি পালন করা হয়।

তৃণমূলের নেতাকর্মীরা জানান, এক সময় আন্দোলন সংগ্রামে শীর্ষ নেতারা আর্থিকভাবে আমাদের পৃষ্টপোষকতা করতেন। এখন আন্দোলনে লোকবল আনতে নিজেদের টাকা-পয়সা খরচ করতে হয়। সবার টাকা-পয়সা খরচ করার সাধ্য নেই। উপজেলা পর্যায়ের বিভিন্ন নেতারা এখন আওয়ামী লীগের পেছনে টাকা-পয়সা খরচ করে। নেতাদের কাজও তাদের দিয়েই করায়। আবার যারা মামলা খেয়েছেন জামিনে নেতারা কোন রকম সহযোগিতা করেন না। নিজেদের টাকা-পয়সা খরচ করে নিজেদেরই তা ব্যবস্থা করতে হচ্ছে। মুন্সীগঞ্জ আদালতে নামেই বিএনপির আইনজীবী রয়েছে। তাদের টাকা দিয়েই কাজ করাতে হয়।

তৃণমূলের নেতাকর্মীরা দল পুনর্গঠনের বিভিন্ন সভায় দাবি করে বলেছেন, অনেক নেতাই ৩-৪ টি করে পদ দখল করে রেখেছেন। এবার যেন এরকমটি না হয়। দলের মধ্যে ত্যাগী-পরীক্ষিত, সাহসি ও দলীয় কর্মকান্ডে সময় দিতে পারেন-এমন নেতাদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়। যারা বিএনপির পদ নিয়ে আওয়ামী লীগের সঙ্গে মিলে ঠিকাদারী ব্যবসা, জমি দখলসহ বিভিন্ন কর্মকান্ড করে বেড়াচ্ছে-তাদের যেন দল থেকে বাদ দেয়া হয় এবং পয়সা বা বিভিন্ন কারনে যাকে তাকে নিয়ে যেন কোন রকম পকেট কমিটি গঠন করা না হয়।

অনেকে বলেন, যারা এলাকায় থাকেন ও কর্মীদের সময় দেন এমন নেতাদের দিয়ে যেন এবার কমিটি গঠন করা হয়। যারা পদ নিয়ে ঢাকায় বসে থাকেন তাদের যেন এবার বাদ দেয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ পদবী নেয়া অনেক নেতা, কর্মীদের মোবাইল ফোনটিও রিসিভ করার সময় পান না। এমন নেতাদের পেছনে রাজনীতি করা বিপদজনক বলেও তারা মনে করেন।

ওদিকে, গত ১১ ই সেপ্টেম্বর বিকেলে দল পুনর্গঠনের লক্ষ্যে শহরস্থ জেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে জেলা বিএনপির কার্যকরী কমিটির সভা হয়। সে সভায় বিভিন্ন এলাকা ও ঢাকা থেকে আগত নেতাদের ব্যাপক গাড়ির বহর দেখে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মনে নানা প্রশ্ন দেখা দেয়। তাদের প্রশ্ন, আন্দোলনের সময় এসব গাড়ি হাকানো নেতারা কোথায় ছিলেন।

এদিকে, মুন্সীগঞ্জ-৩, সাবেক ৪ (মুন্সীগঞ্জ সদর ও গজারিয়া উপজেলা) আসনের সাবেক ৫ বারের সংসদ সদস্য ও কেন্দ্রীয় বিএনপির স্থানীয় সরকার ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক আবদুল হাই তার দুই উপজেলায় দল পুনর্গঠন প্রক্রিয়া শুরু করলেও অন্য উপজেলাগুলোতে এ প্রক্রিয়া শুরু হয়নি বলে জানা গেছে। যদিও আগামী ৫ ই অক্টোবরের মধ্যে বিভিন্ন ইউনিয়ন, ওয়ার্ড ও ১৫ ই অক্টোবরের মধ্যে জেলার ৬টি উপজেলা ও ২টি পৌরসভার কমিটি গঠনের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে দলীয় নেতৃবৃন্দকে।

জেলা বিএনপির সভা হওয়ার পরপরই জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই দল পুনর্গঠনে মাঠে নেমে পড়েছেন। পরদিনই গত ১২ই সেপ্টেম্বর বিকেলে মুন্সীগঞ্জ শহর বিএনপি, ১৬ ই সেপ্টেম্বর সকালে মুক্তারপুরে সদর উপজেলা বিএনপি, একই দিন বিকেলে মিরকাদিম পৌরসভা বিএনপি ও গত ১৭ ই সেপ্টেম্বর সকালে গজারিয়া উপজেলা বিএনপি পুনর্গঠনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা করেছেন।

এসব সভায় তিনি বলেছেন, রাজনৈতিক পরিস্থিতি মোড় নেয়া ক্ষণিকের ব্যাপার, যে কোন সময় মোড় ঘুরবে। পরিস্থিতি আমাদের অনুকুলে আসবে। এ জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। জোয়ার উঠলে কেউ ধরে রাখতে পারবে না। আগামী পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী দেয়া হবে। আন্দোলন ও পৌর নির্বাচনে কর্মীদের মাঠে রাখার জন্য এবার বিবেচনা করে বিভিন্ন কমিটি দেয়া হবে। পরীক্ষিতদের সামনের কাতারে আনতে হবে। তারা সামনে এলে কমিটি শক্তিশালী ও আন্দোলন করতে সুবিধা হবে।

কর্মীদের মনোবল কেন চাঙ্গা হচ্ছে না প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পুনর্গঠন লক্ষ্যে আমরা এখনও সভা করতে বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছি। নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা ঝুলছে, মামলা হচ্ছে। চলছে নির্যাতন। তারপরও আমরা সংগঠতিত করছি। নতুন উদ্যমে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্ঠা অব্যাহত রয়েছে। কেননা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশের মানুষ বিএনপির দিকে তাকিয়ে রয়েছে। দলকে শক্তিশালী করতে প্রয়োজনের তাগিদে একেক সময় একেক সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা

Leave a Reply