ভানুর জন্মস্থান গ্রামের বাড়িটি আজ বেদখল

শেখ রাসেল ফখরুদ্দিন: বিশিষ্ট অভিনেতা ভানু বন্দোপাধ্যায় এর পাচঁগাওঁ গ্রামের বাড়িটি আজ বেদলখ হয়ে গেছে। বিশিষ্ট এই অভিনেতা উপজেলার পাঁচগাও গ্রামে ১৯২০ সালের ২৭শে আগস্ট জন্ম গ্রহন করেন। পাঁচগাও গ্রামে তাঁর বাড়ির পাশে ঐ সময়ে ছোট একটি স্কুল ছিল। সেখানেই তিনি পড়ালেখা শুরু করেন । ছোট বেলায় খুব অস্বাভাবিক মোটা ছিলেন। খেলার ছলে দুস্টামী করে তাঁর বন্ধুরা তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিলে তিনি ওঠতে পারতেন না।

বন্ধুরা বলত দুলভাই বল দুলাভাই না কইলে ওঠামু না! কি আর করা দুলাভাই বলেই তারপর রক্ষা পেতেন। পরবর্তিতে ঢাকার সেন্ট গ্রেগরি’স হাই স্কুল এবং জগন্নাথ কলেজে শিক্ষা শেষ করে ১৯৪১ সালে কলকাতায় চলে যান । থমে তিনি আয়রন এন্ড স্টীল কম্পানি নামে একটি সরকারি অফিসে যোগ দেন এবং বালীগঞ্জের অশ্বিনী দত্ত রোডে তাঁর বোনের কাছে দু’বছর থাকার পর টালিগঞ্জের চারু অ্যাভিন্যুতে বসবাস শুরু করেন। ভানুর অভিনয়-জীবন শুরু হয় ১৯৪৭-এ, ‘জাগরণ’ ছবির মাধ্যমে। সেই বছরই ‘অভিযোগ’ নামে অন্য একটি ছবি মুক্তি পায়।

এরপর ধীরে ধীরে ছবির সংখ্যা বাড়তে থাকে, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ‘মন্ত্রমুগ্ধ’(১ ৯৪৯), ‘বরযাত্রী’(১৯৫১ ) এবং ‘পাশের বাড়ি’(১৯৫২)। ১৯৫৩ সালে মুক্তি পেল ‘সাড়ে চুয়াত্তর’, এবং বলা যেতে পারে যে এই ছবির মাধ্যমেই ভানু দর্শকদের নিজের অভিনয়ের গুণে আকৃষ্ট করা শুরু করেন। এর পরের বছর মুক্তি পায় ‘ওরা থাকে ওধারে’। ১৯৫৮ সালটিতে মুক্তি পাওয়া অনেক ছবির মধ্যে দু’টি ছিল ‘ভানু পেল লটারি’এবং ‘যমালয়ে জীবন্ত মানুষ’। ১৯৫৯-এ মুক্তি পায় ‘পার্সোনাল অ্যাসিস্ট্যান্ট ” এই ছবিতে ভানু নায়কের ভুমিকায় অভিনয় করেন, বিপরীতে ছিলেন রুমা গুহঠাকুরতা। ১৯৬৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘৮০তে আসিও না’ ছবিটিতেও ভানু নায়কের ভুমিকায় অভিনয় করেন, এবং এখানেও ওনার বিপরীতে ছিলেন রুমা দেবী। ১৯৬৭ সালে ভানুর আরো একটি ছবি মুক্তি পায়, ‘মিস প্রিয়ংবদা’ – যেখানে উনি চরিত্রের প্রয়োজনে মহিলা সেজে অভিনয় করেন। এখানে ওনার বিপরীতে ছিলেন লিলি চক্রবর্তী।

ভানুর ‘ভানু গেয়েন্দা জহর অ্যাসিস্ট্যান্ট ’ ছবিটি মুক্তি পায় ১৯৭১ সালে। ভানুর শেষ ছবি ‘শোরগোল’। তিনি ৪ই মার্চ ১৯৮৩ সালে তিনি পরলোকগমন করেন । তিনি প্রায় তিনশত ছবিতে অভিনয় করেন। আমি গত কয়েক মাস আগে ভানুর জন্মস্থান পাঁচগাও গ্রামে যাই। তাঁর সম্পকে তথ্য সংগ্রহ করতে। কিন্তু ওখানে গিয়ে আমি খুব হতাশ হলাম। কিছু লোক বললো এখানে ভানু বিশ্বাস না কি ভানু দাশ নামে একজন বিখ্যাত লোক জন্মেছিল। আবার কেউ কেউ বললো এখানে ভানু পাল নাকি যেন ভানু সিং নামে একজন বিখ্যাত লোক জন্মেছিল। কেউ সঠিক তথ্য আমাকে দিতে পারলোনা।

অবশেষে অনেক কষ্টে ভানুর এক বাল্য কালের একজন বন্ধুর দেখা পেলাম। ওনার কাছেই ভানু সর্ম্পকে অনেক তথ্য পেলাম। ওনি ভানুর বাড়িটি ও দেখিয়ে দিলেন। খুব কষ্ট পেলাম বর্তমানে ভানুর জন্মস্থান পাঁচগাও গ্রামের বাড়িটি আজ বেদখল হয়ে গেছে। ভানু আজ বেঁচে থাকলে খুব কষ্ট পেতেন । ভানুর বাড়িটির অবৈধ দখল মুক্ত করে তার স্মৃতি স্বরুপ একটি মিউজিয়াম তৈরীর করার প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ করলেন অনেকে।

বিক্রমপুর চিত্র

Leave a Reply