পদ্মার নতুন ইলিশ বাজারে

নিষেধাজ্ঞা শেষে নদীতে জেলেরা
জেলার পদ্মা ও মেঘনা নদীতে হাজার হাজার ইলিশ মাছ ধরা পড়েছে। নদী-সংলগ্ন আড়তগুলোতে এ মাছের আমদানি ছিল প্রচুর। পাইকারদের পাশাপাশি সাধারণ ক্রেতারা হুমড়ি খেয়ে পড়েছে ইলিশ কিনতে। কারণ একটাই, গতকাল দাম ছিল কম। গতকাল ভোর ৬টায় পদ্মা নদী-সংলগ্ন মাওয়া মৎস্য আড়তে গিয়ে দেখা যায়, জেলেদের হাসিমুখ। তবে জেলে জুলহাস দেওয়ান বলেন, ‘ভাই আমি শেষ হয়ে গেছি। মধ্যরাতে জাল ফেলেছিলাম পদ্মায়। কিন্তু রাতের আঁধারে আমার জালটি কেটে নিয়ে গেছে জলদস্যুরা। ১৫ দিন বসে থাকার পর অনেক আশা নিয়ে ইলিশ ধরতে পদ্মায় নেমেছি, তার কিছুই পূরণ হলো না।

বরং লক্ষাধিক টাকার জাল চুরি হয়ে গেল।’ এদিকে গতকাল মাছ কিনতে পাইকারসহ সাধারণ ক্রেতাদের ভিড় লক্ষ করা গেছে মাওয়া মৎস্য আড়তে। একই অবস্থা ছিল শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুল ও টঙ্গিবাড়ী উপজেলার হাসাইলসহ পদ্মা-মেঘনাসংলগ্ন মাছের আড়তগুলোতে। গত শনিবার ভোর ৪টা থেকে পাইকাররা আড়তগুলোতে মাছ কেনা শুরু করে। দামও ছিল তুলনামূলকভাবে কম। এক হাজার ২০০ থেকে পাঁচ হাজার টাকার মধ্যে ইলিশের হালি বেচাকেনা হয়েছে। স্থানীয় সাধারণ ক্রেতারা কম দাম পেয়ে মাছ কিনছে সাধ্যমতো। বেশি বেশি মাছ কিনে অনেকে তা ফ্রিজে তুলে রেখেছে।

মাওয়া বাজারের মুদি দোকানি আক্তার হোসেন বলেন, ‘কম দাম পেয়ে পাঁচ হালি ইলিশ কিনেছি। ফ্রিজে রেখে তা ধীরে ধীরে খাব। কিছু ইলিশ আত্মীয়স্বজনকে উপহার হিসেবে পাঠাব।’ তবে তাঁর মতে, গত শুক্রবার কালের কণ্ঠে প্রকাশিত ‘কাল থেকে বাজারে নতুন ইলিশ’ শিরোনামে একটি সংবাদ পড়ে স্থানীয় ক্রেতারা শনিবার সকালে আড়তে হুমড়ি খেয়ে পড়ে। তা না হলে ইলিশের দাম আরো সস্তা হতো। মাওয়ার রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আড়তে এসেছি ইলিশ মাছ কিনতে। প্রচুর ইলিশ বেচাকেনা হচ্ছে। তবে আরো সকালে আসতে পারলে ভালো হতো। এখন ডাকের মাধ্যমে মাছ কিনব। তবে আজ (গতকাল) দাম কমই আছে। এ রকম দাম সব সময় থাকলে আমরাও সব সময় ইলিশ কিনে খেতে পারব।’

কালের কন্ঠ

Leave a Reply