জাপানি গণমাধ্যমে হোশি কুনিও হত্যা সংবাদ

রাহমান মনি: ৩ অক্টোবর রংপুরে একজন জাপানিজ নাগরিক হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। একজন সাধারণ জাপানি নাগরিক হোশি কুনিও হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারটি আর সাধারণ থাকেনি জাপানি গণমাধ্যমে। শুধু জাপান কেন, সারা বিশ্বের অনেক নামিদামি গণমাধ্যমেও ফলাও করে প্রচার করা হয়েছে। আমেরিকা, ইউরোপ, কানাডা এমনকি কোরিয়াও তার দেশের নাগরিকদের সতর্ক করে দিয়েছেন বাংলাদেশের ব্যাপারে। যদিও আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রীর একজন উপদেষ্টা হোশি কুনিওকে জাপানি হিসেবে মানতে নারাজ এবং একজন আলু ব্যবসায়ী বাংলাদেশি হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন এবং হত্যাকাণ্ডকেও বিভিন্ন ঘটনা হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। ঘটনাটি যেহেতু আলুটারি নামক স্থানে ঘটেছে, তাই আলু ব্যবসায়ী হিসেবে ধরে নিয়েছেন।

হোশি কুনিও হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি ঐদিনই গণমাধ্যমে ব্যাপকভাবে আলোচনা শুরু হয়। যার রেশ এখনও চলছে। ৩ অক্টোবর প্রায় প্রতিটি সংবাদ মাধ্যমেই তাদের সান্ধ্যকালীন সংস্করণে লিড নিউজ করে। পরের দিন জাপান টাইমস ইউসিউরি সিমবুন, আসাহি সিমবুন, মাইনিটি সিমবুনসহ প্রথম সারির প্রায় প্রতিটি সংবাদপত্রের জাপানিজ এবং ইংরেজি সংস্করণে লিড নিউজ নিয়ে সংবাদ পরিবেশন করে। একই সঙ্গে পত্রিকাগুলো মাত্র এক সপ্তাহ পূর্বে ঢাকাতে ইতালিয়ান নাগরিক হত্যাকাণ্ডের কথাটিও উল্লেখ করেন।

রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা এনএইচকে, হাইভিশন, এনএইচকে ওয়ার্ল্ড এনটিভি, টেলিভিশন টোকিও, আশাহি বা টিবিএসসহ প্রায় প্রতিটি টেলিভিশন খবরেও তা ফলাও করে সংবাদ প্রচার করে এবং হোশি কুনিওর মতো একজন সাদাসিধে মানুষের এমন হত্যাকাণ্ডে বিস্ময় প্রকাশ করে।

৫ অক্টোবর সোমবার বিএস (ইঝ) এবং সংবাদনির্ভর টেলিভিশনগুলো বিশেষ বুলেটিন হিসেবে প্রচার করতে থাকে প্রায় ১০ মিনিট পর পর। এই দিন সান্ধ্যকালীন ২৪ ঘণ্টা সংবাদ পরিবেশনে একাধিকবার সচিত্র সংবাদ পরিবেশন করেন। সেই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য প্রচার করেন সংবাদের সঙ্গে। স্বভাবসুলভভাবে তিনি বিএনপি-জামায়াত এবং জঙ্গি কালেকশনের কথা বাংলাদেশে সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করলে জাপানি টেলিভিশনগুলো তা ফুটেজ হিসেবে দেখাতে থাকে এবং সঙ্গে স্থানীয় জনগণের হোশি প্রীতির কথাও উল্লেখ করে। রংপুরের জনগণ হোশিকে কতটা ভালোবাসতো উল্লেখ করতেও ভুল করেনি সংবাদ মাধ্যমগুলো।

এদিকে হোশি কুনিও হত্যাকে কাপুরুষোচিত আখ্যায়িত করে এ জন্য ক্ষোভ প্রকাশ করে হত্যাকাণ্ডের সঠিক এবং পূর্ণাঙ্গ তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ শাস্তি প্রদান দাবি করেছে জাপান সরকার।

৫ অক্টোবর সোমবার টোকিওতে নিয়মিত এক সংবাদ সম্মেলনে জাপানের মন্ত্রিপরিষদের মুখ্য সচিব এবং আবে প্রশাসনের প্রধান মুখপাত্র ইয়োশিহিদে সুগা সাংবাদিকদের কাছে সরকারের এ আহ্বানের কথা তুলে ধরেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সুগা আরও বলেন, জাপান পুলিশের একটি প্রতিনিধি দল তাদের নিজস্ব তদন্তের জন্য ইতোমধ্যে বাংলাদেশে চলে গেছেন। চার সদস্যবিশিষ্ট এই প্রতিনিধি দলের সদস্যরা হচ্ছেন ইয়োশিতাকা ইয়ামাদা, শুয়া মাৎসুমুরা, শিগেতাদা ফুরুগোরি এবং নাওকি ইয়োশিকাওয়া।

সুগা সংবাদ সম্মেলনে হোমি পরিবারকে সমবেদনা জানিয়ে তাদের আশ্বস্ত করে বলেন, সরকার এ ব্যাপারে সব ধরনের পদক্ষেপই নেবে এবং এ ধরনের কাপুরুষোচিত আচরণের পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে তা বন্ধে সরকার বদ্ধপরিকর। তিনি এ ধরনের ঘটনায় ব্যক্তিগতভাবেও ক্ষুব্ধ বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর (সর্বশেষ মে ২০১৪) জাপান সফরের সময় কোনো সংবাদ মাধ্যমেও তা প্রকাশ বা প্রচার না পেলেও হোশি হত্যাকাণ্ডে জাপানি গণমাধ্যমে একাধিকবার বিশেষ বুলেটিনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সচিত্র জাপানের একজন নাগরিকের প্রতি সরকারের কতটা দায়িত্ব ও কর্তব্য তা প্রবাসী সমাজে ব্যাপক আলোচনার ঝড় বয়ে যায়। অথচ সীমান্তে বাংলাদেশি জনগণকে পাখির মতো গুলি করে মারলেও বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে কোনো জোরালো প্রতিবাদ এবং তা বন্ধে আশু কোনো পদক্ষেপ না নিতে পারায় সমালোচনা করেন প্রবাসীরা।

হোশি কুনিও হত্যাকাণ্ডে স্বাভাবিকভাবেই জাপানি জনগণের কাছে বাংলাদেশি প্রবাসীদের মাথা নত হয়েছে। কর্মক্ষেত্রে জাপানি বন্ধুদের কাছে বিভিন্ন কৈফিয়ত দিতে হয়েছে প্রবাসীদের। অন্যান্য দেশের নাগরিকদের কাছেও একইভাবে মাথা নত হয়েছে প্রবাসীদের।

স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনও বসে নেই। তারা বিভিন্নভাবে খোঁজখবর নিচ্ছেন হোশি কুনিও হত্যার। এ ক্ষেত্রে প্রবাসী সোর্সদেরই বেশি প্রাধান্য দিচ্ছেন। পরিচিতজনদের কাছ থেকেও জেনে নিচ্ছেন জাপানি জনগণের ব্যাপারে বাংলাদেশিদের মনোভাবে কথা।

একজন পুলিশ অফিসারের সঙ্গে কথা প্রসঙ্গে জানা যায়, জাপানি জনগণ ও পুলিশ প্রশাসন ঘটনার দায় স্বীকারকারী আইএস (ইসলামিক স্টেট)’এ সহজে মানতে নারাজ। এ ক্ষেত্রে তাদের যুক্তি হচ্ছে; আইএস জড়িত হলে বা আইএস খুন করলে উচ্চপর্যায়ের কাউকে মুক্তিপণ হিসেবে অপহরণ করবে অথবা কোনো বিনিময় দাবি করবে, অজপাড়াগাঁয় একজন সাদাসিধে নাগরিককে হত্যা করে পালিয়ে গিয়ে দায় স্বীকার করে সঙ্গে সঙ্গে প্রচার করবে না। তাছাড়া আইএস কর্তৃক খুনের সঙ্গেও তার কোনো মিল পাওয়া যায় না। তবে সঠিক তদন্তেই তা বেরিয়ে আসবে।

এদিকে জাপান দূতাবাস থেকেও কিছু অনুরোধ জানানো হয়েছে বাংলাদেশকে। তদন্তের স্বার্থেই এই অনুরোধ। বিশেষ করে বাংলাদেশ মিডিয়ার প্রতি সুনির্দিষ্ট তিনটি আহ্বান জানিয়েছে জাপান দূতাবাস। ১. রংপুরে সফররত জাপানি দূতাবাসের কোনো কর্মকর্তার ছবি নেয়া এবং ভিডিও ধারণ করে তা প্রচার থেকে বিরত থাকা, ২. তদন্তের স্বার্থে হত্যাকাণ্ডের ঘটনাস্থলে পুলিশের দেয়া বেষ্টনী মেনে চলা এবং ৩. হোশি পরিবারের প্রতি সম্মান দেখিয়ে হত্যাকাণ্ড সম্পর্কিত কোনো ছবি প্রচার থেকে বিরত থাকা। এই তিনটি সুনির্দিষ্ট অনুরোধ জানায় জাপান দূতাবাস।

যদিও তিনটি অনুরোধই খুব স্বাভাবিক এবং নৈতিকভাবে মেনে চলাই গণমাধ্যমের কাজ। তথাপি দূতাবাস কর্তৃক আহ্বান চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় যে, আমাদের মিডিয়া কত বিবেচক এবং নিষ্ঠুর।

মনে পড়ে ২০১১ সালের ১২ মার্চ শনিবার জাপানের প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান (১১ মার্চের ভয়াবহ ভূমিকম্প এবং পরবর্তী বিষয়ের পরের দিন) বিদেশি সংবাদ মাধ্যমগুলোকে তার কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে দুর্ঘটনায় ভিকটিমদের ছবি প্রকাশ করে সংবাদ পরিবেশন থেকে বিরত থাকার আহ্বানের কথা।

জাপান প্রবাসীদের দাবি হোশি কুনিও’র হত্যাকাণ্ডের সঠিক তদন্ত এবং আইনের আওতায় যোগ্য শাস্তি প্রদান। রাজনৈতিক কাদা ছোড়াছুড়ি এবং দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের অহেতুক অযাচিত কথা বলা থেকে বিরত থেকে বিচারের আওতায় এবং অপরাধীদের শাস্তি প্রয়োগই কেবল জাপানে প্রবাসীদের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে পারে। কারণ জাপান বাংলাদেশের অকৃত্রিম এবং পরীক্ষিত এক বন্ধু।

৪ অক্টোবর টোকিওতে মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি আয়োজিত ঈদ পুনর্মিলনী ২০১৫ আয়োজনে রাষ্ট্রদূতের উপস্থিতিতে প্রবাসীরা হোশি কুনিওর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে নীরবতা পালন করেন।
rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply