মুজাহিদ আলবদর বাহিনীকে উত্সাহিত করেছেন

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় ফাঁসির সাজাপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা আলী আহসান মুহাম্মাদ মুজাহিদ আলবদর বাহিনীর সদস্যদেরকে উত্সাহিত করেছেন, অনুপ্রেরণা দিয়েছেন। এজন্যই আপিল বিভাগে মৃত্যুদণ্ডের রায় বহাল রাখা সঠিক হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মাহবুবে আলম।

মঙ্গলবার আদালত থেকে বেরিয়ে তিনি সাংবাদিকদের কাছে এমন মন্তব্য করেন।

মুজাহিদের ফাঁসি বহাল রাখার বিষয়ে আশা প্রকাশ করে মাহবুবে আলম বলেন, ‘মানবতাবিরোধী অপরাধে সরাসরি অংশ নিতে হবে এ আইনে এমনটি নেই। তিনি একাত্তরে আলবদর বাহিনীর সদস্যদেরকে উত্সাহিত করেছেন, অনুপ্রেরণা দিয়েছেন, সহযোগিতা করেছেন। এজন্যই তার মৃত্যুদণ্ডের রায় বহাল থাকবে।’

তিনি বলেন, ‘মুজাহিদের আইনজীবীরা তার (মুজাহিদের) পক্ষে আদালতে যেসব বক্তব্য উপস্থাপন করেছেন তার বিরুদ্ধে আমি আদালতে যুক্তি তুলে ধুরেছি। তার আইনজীবীরা আদালতে বলেছেন- একাত্তরে মুজাহিদ বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডে সরাসার অংশ নেননি। এর জবাবে আমি বলেছি- মানবতাবিারোধী অপরাধের সময় মুজাহিদ আলবদর বাহিনীর সদস্যদেরকে উত্সাহিত করেছেন, অনুপ্রেরণা দিয়েছেন, সহযোগিতা করেছেন। এজন্য তার সাজা বহাল থাকা উচিত।’

এদিকে একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদের রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদনের রায় আগামীকাল বুধবার নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার নেতৃত্বাধীন চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চে মঙ্গলবার রিভিউ আবেদনের শুনানি শেষে রায় ঘোষণার তারিখ নির্ধারণ করেন।

আসামিরপক্ষে শুনানি করেন মুজাহিদের প্রধান আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহাবুব হোসেন। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে আদালতে যুক্তি তুলে ধরেন প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মাহবুবে আলম।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ১৭ জুলাই আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মুজাহিদকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার আদেশ দিয়েছিলেন। ওই রায় চ্যালেঞ্জ করে মুজাহিদের আইনজীবীরা সর্বোচ্চ আদালতে গেলে সর্বোচ্চ আদালতও ট্রাইব্যুনালের রায় বহাল রাখেন। তবে প্রসিকিউশনের আনা সাতটি অভিযোগের মধ্যে ট্রাইব্যুনাল তাকে তিনটিতে মৃত্যুদণ্ড দিলেও আপিল বিভাগ শুধুমাত্র ষষ্ঠ অভিযোগে অর্থাত বুদ্ধিজীবী হত্যার দায়ে ট্রাইব্যুনালের রায় বহাল রাখেন।

৩০ সেপ্টেম্বর সর্বোচ্চ আদালতের এই রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশের পর দণ্ড থেকে বাঁচতে মুজাহিদের সামনে খোলা ছিল রায় পুনর্বিবেচনার আবেদনের পথ। আগামীকাল এতেও যদি তার দণ্ডই থেকে যায় তবে ফাঁসি থেকে বাঁচতে তার সামনে খোলা থাকবে একটাই রাস্তা তা হলো- রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনা।

ক্রাইম ভিশন

Leave a Reply