অনৈতিক প্রস্তাব উকিল পিতার: আত্মহত্যা করল নব দম্পতি

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার গোসাইর চর গ্রামে উকিল পিতার অনৈতিক প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় স্বামীকে মেরে ফেলার হুমকিতে বিষপানে আত্বহত্যা করছে নব দম্পতি। নিহত দম্পতির নাম জাহিদ হাসান(২০) ও তার স্ত্রী ঊর্মি আক্তার (১৮)।

প্রতিবেশী ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়,নাজির চর গ্রামের সানাউল্লাহ্ মিয়ার ছেলে জাহিদ হোসেনের সাথে গোসাইর চর গ্রামের আমিরুল ইসলামের মেয়ে ঊর্মি আক্তারের প্রণয় ছিল। গত দুই মাস আগে পারিবারিকভাবে তাদের বিয়ে হয়। তবে ঊর্মির মা মালেকা বেগম ছাড়া উভয় পরিবারের বেশীর ভাগ সদস্য মন থেকে এই বিয়ে মেনে নিতে পারেনি। বিয়ের পর থেকেই উভয় পক্ষের আত্বীয়রা নব দম্পতিকে বিয়ে বিচ্ছেদের জন্য বিভিন্ন উপায়ে চাপ প্রয়োগ করে আসছিলো।

অন্যদিকে নিহত ঊর্মির সৎ খালু ও উকিল পিতা মিজানুর রহমান ঊর্মিকে বিরক্ত করত, অনৈতিক প্রস্তাব দিয়ে উতক্ত করত। ঘটনার আগের দিন রাতে ও পরদিন সকালে মিজানুর রহমান ও মেয়ের জামাই মহিউদ্দিন মিয়ার অব্যাহত চাপ ও হুমকির কারণে ২৩ জানুয়ারি,শনিবার সকালে ঊর্মির নানার বাড়িতে নব দম্পতি বিষ জাতীয় পদার্থ পান করে। সকাল পৌনে দশটায় প্রতিবেশীদের সহয়তায় আসংখ্যাজনক অবস্থায় তাদের প্রথমে গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় প্রথমে জাহিদ হাসান পরে ঊর্মি আক্তার মৃত্যু হয়।

নিহত ঊর্মির মা মালেকা বেগম জানান,তার সৎ বোনের স্বামী,ঊর্মির উকিল পিতা মিজানুর রহমান ঊর্মিকে অনৈতিক প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। সে ঊর্মিকে বিয়ে করার ও প্রস্তাব দেয়। কিন্তু ঊর্মি রাজি না হওয়ায় মিজানুর রহমান ও মেয়ের জামাই মহিউদ্দিন মিয়া দম্পতিকে মারধর,চাপ,হুমকি দেয়। গত কয়েকদিন আগে মিজান ও তার ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা ঊর্মির স্বামী জাহিদকে মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে ঊর্মিকে তালাক দিতে বলে অন্যথায় তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এ কারণেই তার মেয়ে ও মেয়ে জামাই বাধ্য হয়ে আত্বহত্যা করেছে। অভিযুক্তদের বিরোদ্ধে তিনি মামলা দায়ের করবেন।

এদিকে গজারিয়া থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোঃ হেদায়েত উল ইসলাম ভুঁইয়া ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান,পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এসেছে এখনও পর্যন্ত আমরা কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। ঘটনার পর থেকে আত্বহত্যায় প্ররোচনার দায়ে অভিযুক্ত মিজানুর রহমান ও তার মেয়ের জামাই মহিউদ্দিন মিয়া পলাতক রয়েছে।

এদিকে গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার সময় লাশ বহনকারী এ্যাম্বুলেন্স দুটি গোসাইর চর পৌছালে সেখানে এক হৃদয় বিদারক পরিস্তিতির সৃষ্টি হয়। এ সময় কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন নিহতদের স্বজন ও প্রতিবেশীরা। এ ঘটনায় অভিযুক্ত মিজান ও তার মেয়ের জামাই মহিউদ্দিনের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করেন তারা।

বিডিলাইভ

Leave a Reply