খানাখন্দে নাকাল যাত্রী-পথচারীরা: দিঘিরপাড় সিপাহীপাড়া সড়ক

মুন্সিগঞ্জের দিঘিরপাড়-সিপাহীপাড়া সড়কজুড়ে খোয়া উঠে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির দিনে এসব গর্তে পানি জমে থাকে। আর শুকনা মৌসুমে বাতাসে ও গাড়ি চলার সময় ধুলা উড়ে সড়কটি আচ্ছন্ন হয়ে যায়।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, দিঘিরপাড়-সিপাহীপাড়া-ঢাকা সড়কের দিঘিরপাড়-সিপাহীপাড়া অংশের দৈর্ঘ্য প্রায় আট কিলোমিটার। এ আট কিলোমিটারের অর্ধেক অংশ সদরে ও বাকি অর্ধেক টঙ্গিবাড়ী উপজেলায় পড়েছে। এ ছাড়া আট কিলোমিটার সড়কের বিভিন্ন স্থানে ছয়টি বেইলি সেতুর স্থলে দেড় বছর ধরে পাকা সেতু নির্মাণের কাজ চলছে। এসব সেতুর পাশ দিয়ে বিকল্প সড়ক নির্মাণ করে যান চলাচল স্বাভাবিক রাখা হয়েছে। তবে নির্মাণস্থলের আশপাশে প্রচুর ধুলা উড়ছে। এতে গাড়ির চালকদের ঝুঁকি নিয়ে চলতে হচ্ছে। পথচারীদেরও চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।

গত শুক্রবার সরেজমিনে দেখা যায়, সিপাহীপাড়া চৌরাস্তা থেকে বাঁ দিকে একটু গেলেই শুরু হয় খানাখন্দ। এরপর থেকে সড়কে সর্বত্র কমবেশি খানাখন্দ। মাঝখানে মদিনা বাজার থেকে আলদীবাজার ও পুরানবাজার থেকে আধা কিলোমিটার পর্যন্ত খানাখন্দ কিছুটা কম। আলদীবাজারের মাঝে সড়কের ওপর সরু বেইলি সেতুর ঢালে দীর্ঘ যানজট লেগে আছে। বাজারের ব্যবসায়ীরা বলেন, এ সেতুর এক পাশ দিয়ে একটি গাড়ি ওঠার পর অন্য প্রান্ত থেকে আরেকটি গাড়ি আসতে পারে না। তাই প্রায় সময় এখানে যানজট লেগে থাকে। আট কিলোমিটার সড়কে ছয়টি বেইলি সেতুর স্থলে পাকা সেতু নির্মাণ করা হলেও আলদীবাজারের সরু বেইলি সেতুর স্থানে পাকা সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে না।

দিঘিরপাড় বাজারের ব্যবসায়ী সোহরাব খান বলেন, ছয়-সাত বছর ধরে সড়কটি বেহাল। প্রতিদিন এ সড়কে বাস, ট্রাক, সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ শত শত যান চলাচল করে। ফলে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রীকে ভোগান্তি পোহাতে হয়। তবে কর্তৃপক্ষের কোনো মাথাব্যথা নেই।

দিঘিরপাড় পরিবহনের মালিক জগলুল হালদার বলেন, সড়কের দুরবস্থার কারণে তাঁদের পরিবহনের বাস প্রায় সময় যন্ত্রাংশ খুলে বা নষ্ট হয়ে বিকল হচ্ছে। ধুলার কারণে গাড়ি পানি দিয়ে ধুয়ে বারবার পরিষ্কার করতে হয়। এতে খরচ বেড়ে যাচ্ছে। এসব কারণ দেখিয়ে গাড়ির ভাড়া বৃদ্ধি করলে যাত্রীরা আবার খেপে যাচ্ছে।
নুরপুকুরপার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শারমিন আক্তার বলেন, ‘প্রতিদিন আমাকে মুন্সিগঞ্জ শহরের পিটিআই ট্রেনিং সেন্টারে এ সড়ক দিয়ে যাওয়া-আসা করতে হয়। তবে সড়কের অবস্থা এতটাই নাজুক যে এক দিন গেলে পরের দিন আর আর যেতে ইচ্ছা করে না।’

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে সড়ক ও জনপথ (সওজ) মুন্সিগঞ্জ অঞ্চলের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. তারেক ইকবাল বলেন, ‘এ বছর সড়কটি সংস্কারে কোনো দরপত্র আহ্বান সম্ভব নয়। নতুন বছরে চেষ্টা করব।’

প্রথম আলো

Leave a Reply