ঢাকার কাছের হলুদ প্রান্তরে

সময় বের করে যে কোনো দিন সকালে বেড়িয়ে পড়তে পারেন হলুদের এই রাজ্যে। বাংলার মাঠে মাছে প্রকৃতি এই শীতে বিছিয়েছে হলুদ গালিচা। ঢাকা শহরের অট্টালিকার ভীড় ছেড়ে কোনো দিকে একটু বেড়িয়ে পড়লেই চোখে পড়বে প্রকৃতির এই অপূর্ব দৃশ্য। যে দিকেই চোখ যাবে শুধুই হলুদ আর হলুদ।

ঢাকা শহরের পশ্চিম পাশে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরের মাঠে মাঠে এখন সরিষা ফুলে পরিপূর্ণ। ঢাকা আরিচা মহাসড়কের হেমায়েতপুর থেকে হাতের বাঁয়ের সড়কে দুই কিলোমিটার চললেই ধলেশ্বরী সেতু। ওপারে গিয়ে হাতের বাঁয়ে-ডানে যে কোনো দিকের ছোট ছোট সড়কগুলোতে ঢুকে পড়ুন।

তবে এ এলাকার মানিকনগর যেতে ভুলবেন না। সেতু পেরিয়ে সামনে বিন্নাডিঙ্গি বাজার থেকে বাঁয়ের সড়কে কয়েক কিলোমিটার চললেই মানিকনগর। সেখানে সড়কের দুইপাশের জমিনগুলো ছেয়ে আছে সর্ষে ফুলে। ঢাকার গাবতলী থেকে সিঙ্গাইরের বাস সার্ভিস আছে।

ঢাকার কাছের আরেকটি সরিষা ক্ষেত দেখতে যেতে পারেন কেরাণিগঞ্জের রোহিতপুর এলাকায়। ঢাকার বাবুবাজারে বুড়িগঙ্গা সেতু পেরিয়ে সামনে দোহারগামী সড়ক ধরে যেতে হবে রোহিতপুর। গুলিস্তান এলাকা থেকে রোহিতপুরে যাওয়ার লেগুনা সার্ভিস আছে।

ঢাকার কাছে সরিষা ফুলের আরেক রাজ্য মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলার সাতগাঁও এলাকা। জায়গাটি ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক লাগোয়া। এ জায়গাও সরিষা ফুলে ছেয়ে আছে এখন। তবে এখানকার সরিষা ক্ষেতে বসেছে মৌচাষীরা। সরিষা ক্ষেতে ভ্রমণের সঙ্গে এখানে তাই দেখতে পাবেন সরিষা ক্ষেতে মধু চাষের কৌশলও।

এছাড়া মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীর সোনারং এলাকায়ও আছে প্রচুর সরিষা ক্ষেত।

আর শীতে শুকিয়ে যাওয়া সিরাজদিখানের ইছামতির তীরজুড়ে সরিষা ক্ষেতগুলোও বেড়াতে ভালো লাগবে। ঢাকার গুলিস্তান এলাকা থেকে মাওয়াগামী যে কোনো বাসে উঠলেই শ্রীনগরের সাতগাঁও। এছাড়া গুলিস্তান থেকে সোনারং ও সিরাজদিখান যাওয়ার বাস সার্ভিসও আছে।

ঢাকার কাছে সরিষা ক্ষেত দেখতে আরও ঢুঁ মারতে পারেন নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার বৈদ্যের বাজার কিংবা বারদী এলাকায়। সোনারগাঁও থেকে বৈদ্যের বাজার সড়ক ধরে বারদীর দিকে গেলে মেঘনা তীরের জমিনগুলো হলুদের গালিচায় বিছানো। ঢাকার গুলিস্তানে মেয়র হানিফ উড়াল সড়কের প্রবেশমুখ থেকে বারদী যাওয়ার বাস ছাড়ে।

এছাড়া একই জায়গা থেকে মোগড়াপাড়ার বাসে চড়ে সেখান থেকে অটো রিকশায়ও যেতে পারেন জায়গাগুলোতে।

প্রয়োজনীয় তথ্য: ঢাকার কাছের সরিষা ক্ষেতগুলোতে ভ্রমণে যেতে চাইলে খুব সকালে বেড়িয়ে পড়ুন। তবে এ ভ্রমণে গণপরিবহনে না চড়ে নিজস্ব কিংবা ভাড়ায় কোনো গাড়ি নিয়ে যাওয়া ভালো। কয়েকজন মিলে একটি গাড়ি ভাড়া করলে খরচ কম হবে।

ভ্রমণে গিয়ে কোনো জায়গায় পানির বোতল কিংবা প্লাস্টিক-জাতীয় কিছু ফেলে আসবেন না।

মুস্তাফিজ মামুন
বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply