শীলমন্দিরে স্বামী হত্যা মামলায় স্ত্রী গ্রেফতার

মুন্সীগঞ্জের সদরের পূর্ব শীলমন্দির গ্রামের সৌদি প্রবাসী দীন ইসলামের (৩৫) হত্যার প্রধান আসামি স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন রুনাকে(৩০) গ্রেফতার করেছে মুন্সীগঞ্জ থানা পুলিশ। সোমবার সকাল ১০টার দিকে তাকে পূর্ব শীলমন্দির গ্রামের নিজ শ্বশুর বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে রোববার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শাহবাগ পুলিশের সহায়তায় ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ তার নিজ বাড়িতে নিয়ে আসলে এলকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। সোমবার বেলা ১১টার দিকে শীল মান্দির স্কুল মাঠে জানাজা শেষে তার লাশ দাফন করা হয়।

মামলার বাদী নিহতের চাচা শাহ আলম জানান, দীন ইসলামের সাথে সাবিনার ১০ বছর আগে বিয়ে হয়। তাদের পরিবারে দুই সন্তান আছে। প্রায় এক বছর ধরে সাবিনার সাথে দীন ইসলামের পরিবারের নানা কারণে ঝগড়া চলে আসছিল এবং সাবিনার নিজ বাড়ি ব্রাক্ষণবাড়িয়ার নাসিরনগর থানার গুনিয়াউক গ্রামে বসবাস করছিলেন। ১০দিনের ছুটি নিয়ে দীন ইসলাম বাংলাদেশে আসেন এবং ১০ জানুয়ারি(বুধবার) শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে সাবিনাকে আনতে যান।

একদিন পর ১১ জানুয়ারি (বৃহস্পতিবার) রাত ২টার দিকে স্ত্রী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন দীন ইসলামের মাথায় গুরুতর জখম করেন। পরে সিলেটের হবিগঞ্জে নিয়ে গেলে অবস্থার অবনতি দেখে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। পরে ভোররাত ৪টার দিকে ঢামেক হাসপাতালে দীন ইসলামকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসক। এর পরপরই শ্বশুর বাড়ির লোকজনকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। এই ঘটানায় চারজনের নাম উল্লেখ করে নাসিরনগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়।

নাসির নগর থানার উপ-পরিদর্শক ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাদন চৌধুরী জানান, এই ঘটনায় মামলার প্রধান আসামি রুনাকে মুন্সীগঞ্জ সদর থানা পুলিশ সকাল আটক করেছে। নাসিরনগর থানা পুলিশ রুনাকে নাসিরনগর থানায় আনার প্রস্ততি করছে। এই ঘটনায় গত ১৩ জানুয়ারি একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মঞ্জুর হোসেন জানান, সোমবার সকালে পূর্ব শীলমান্দি গ্রামের দীন ইসলামের নিজ বাড়ি থেকে প্রধান আসামি রুনাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পরিবর্তন

Leave a Reply