গজারিয়ায় নববধূকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ

হাতের মেহেদীর রং শুকাতেই পাষন্ড স্বামী তার নব বিবাহিত স্ত্রীকে গলা টিপে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত নববধূ সোহানা আক্তার এবার মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলা কলিমউল্লাহ ডিগ্রি কলেজে একাদশ শ্রেণি কমার্স থেকে ফাইনাল পরিক্ষা দিয়েছে। আর কয়েক দিন পরেই ফলাফল প্রকাশ করার সম্বাবনা রয়েছে। বুধবার (১২ জুন) সকাল সাড়ে দশটার দিকে গজারিয়া উপজেলা বাউশিয়া ইউনিয়নে চর বাউশিয়া বড়কান্দি গ্রামে স্ত্রীর বাড়িতে স্ত্রী সোহানা আক্তার (১৭)-কে গলাটিপে হত্যা করেছে স্বামী সাইদুল ইসলাম (২৩)। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনার স্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে সন্ধ্যায় মুন্সীগঞ্জ জেলা হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।
নিহত সোহানা আক্তারে চাচা আলী আহম্মদ জানান, গত ২৯ শে মার্চ একই ইউনিয়নের বাউশিয়া নয়াকান্দি গ্রামের মো. আজিজ মিয়ার ছেলে সাইদুল ইসলামের সাথে আমার বড় ভাই দিনমজুর সোহেলের মেয়ে সোহানার বিবাহ হয়। বিয়ের সময় নগদ দেড়লাখ টাকা এবং স্বর্ণালঙ্কার দেয়া হয়।

পরে জানা যায় সাইদুল মাদকে আসক্ত। বিবাহের পর থেকে নেশার টাকার জন্য বার বার আমার ভাতিজি সোহানা আক্তারকে নির্যাতন করতে থাকে। গত এক সপ্তাহ আগে সোহানা বাপের বাড়িতে চলে আসে। এরপর বুধবার সকালে সোহানার কাছে নেশার জন্য টাকা চায় সাইদুল। টাকা দিতে অসম্মতি জানালে সোহানাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে মরদেহ ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে। পরে ঘরের দরজা শিকল দিয়ে আটকিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় সোহানার বাড়িতে কেউ ছিল না।

এ বিষয়ে গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হারুন অর-রশিদ জানান, ১লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন এবং আত্মহত্যার প্ররোচনার দায়ে স্বামী সাইদুলকে আসামি করে বুধবার রাতে নিহতের বাবা বাদী হয়ে মামলা করেছেন।
অভিযুক্ত আসামীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

অবজারভার

Leave a Reply