মৃত্যুতে সমাপ্তি ৭ বছরের প্রেমের

ইমোতে পরিচয়ের পর সৌদি প্রবাসী মো. ফারহান সবুজের সঙ্গে ৭ বছর ধরে প্রেম করেন ফাতেমা আক্তার (২২) নামের এক তরুণী। সম্প্রতি তার সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় আত্মহত্যা পথ বেছে নিলেন ফাতেমা। এর মধ্য দিয়ে শেষ হলো ৭ বছরের প্রেম।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে মুন্সীগঞ্জ মিরকাদিম পৌরসভা এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

নিহত ফাতেমা আক্তার (২২) মিরকাদিম পৌরসভার কাঁঠালতলা এলাকার আহম্মেদ হোসেনের মেয়ে।

জানা যায়, ফাতেমার সঙ্গে গত সাত বছর ধরে সৌদি প্রবাসী মো. ফারহান সবুজ নামের এক ছেলের সঙ্গে ইমোতে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। এর মধ্যে কখনো তাদের দেখা হয়নি। ফাতেমাকে অন্য কোথাও বিয়ে দিতে চাইলে সৌদি প্রবাসী ফারহান নানানভাবে ব্ল্যাকমেইল করে।

গত সপ্তাহে পারিবারিকভাবে তাদের বিয়েও ঠিক হয়। কিন্তু গত তিনদিন আগে ফাতেমাকে ফারহান বিভিন্ন কারণে সন্দেহ করে বকাঝকা দেয়। পরে ফাতেমা সহ্য করতে না পেরে ফাঁসি দেয়।

নিহতের মা জানান, গত সপ্তাহে পারিবারিকভাবেই ফারহানের সঙ্গে মেয়ের বিয়ে ঠিক হয়েছিল। কিন্তু গত তিনদিন ধরে ফাতেমা খাবার খায় না। জিজ্ঞাসা করলে উত্তরও দেয় না। বৃহস্পতিবার ১টার দিকে রান্না বসিয়ে পুকুরে পানি আনতে গেলে এই সুযোগে ফাতেমা ঘরের দরজা জানালা বন্ধ করে ফাঁসি দেয়। পরে ছোট ছেলে দরজা ভেঙে ফাতেমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

হাতিমার পুলিশ ফাঁড়ির এসআই এনামুল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর

Leave a Reply