মুন্সীগঞ্জ, শরীয়তপুরে বিশেষ অভিযান শুরু

স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের নিরাপত্তা নির্বিঘœ করতে পদ্মা সেতুর অবস্থান এলাকাধীন দুই জেলা মুন্সীগঞ্জ ও শরীয়তপুরে বিশেষ অভিযান পরিচালনা শুরু করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এই অভিযানের আওতায় দুর্ধর্ষ অপরাধী, দুর্বৃত্ত, গ্রেফতারি পরোয়ানার আসামি, জঙ্গী, সন্ত্রাসী, সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। এ জন্য মুন্সীগঞ্জ ও শরীয়তপুর জেলা এলাকার মেস, হোটেল-মোটেলসহ গুরুত্বপূর্ণ ও স্পর্শকাতর স্থানগুলোতে তল্লাশি, নজরদারি শুরু করা হযেছে। পুলিশ, র‌্যাব, সিআইডি, ডিবি, সাদা পোশাকের গোয়েন্দা সংস্থাসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ইউনিটের সদস্যরা বিশেষ অভিযান পরিচালনায় অংশ নিচ্ছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিশেষ বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পুলিশ সদর দফতরের নির্দেশে বিশেষ অভিযান পরিচালনা শুরু করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠনের দিনে জল পথে কোস্ট গার্ড, স্থল পথে কমান্ডো বাহিনী ও আকাশপথে হেলিকপ্টার টহল দেয়ার প্রস্তুতি সম্পন্ন। আগামী ২৫ জুন স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে এ খবর জানা গেছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, নাশকতা ও নৈরাজ্য চালাতে পারে কুচক্রী মহল এমন গোয়েন্দা সংস্থার তথ্যের ভিত্তিতে নিñিদ্র নিরাপত্তার জাল তৈরি করার উদ্দেশ্যে আগে থেকেই নিরাপত্তা নির্বিঘœ করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান পরিচালনা শুরু করেছে। বুধবার থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অভিযান পরিচালনা শুরু করা ছাড়াও গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া শনিবার থেকে পদ্মা সেতু এলাকার নিরাপত্তা বলয় সৃষ্টির আওতাধীন এলাকায় কেউ অবস্থান করতে পারবেন না এমন কথা সাফ জানিয়ে দেয়া হয়েছে। রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন স্থানেও ব্লক রেইড দেয়া হচ্ছে যাতে সন্ত্রাসী, দুর্বৃত্ত, জঙ্গী, অপরাধীরা আশ্রয় বা অবস্থান করতে না পারে। স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলো ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়ার পর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার অভিযান পরিচালনায় নেমেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

পুলিশ সদর দফতর সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার থেকে আগামী শনিবার পর্যন্ত আগামী তিন দিন মুন্সীগঞ্জের মাওয়া ও শরীয়তপুরের পদ্মা সেতুর এলাকায় কঠোর নিরাপত্তার বলয় গড়ে তোলা হচ্ছে। নিরাপত্তা ছক তৈরি করেছে পুলিশ ও র‌্যাব। কোন মহল বা চক্র পদ্মা সেতু নিয়ে বা এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান নিয়ে কোন ধরনের অপপ্রচার ও বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করলে কঠোরভাবে তা দমন করা হবে। কোন ধরনের ছাড় দেয়া হবে না কাউকে- এমন নির্দেশনা দেয়া হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধন ঘিরে কঠোর নিরাপত্তা ছক তৈরি করা হয়েছে। কোন অপপ্রচার বা গুজব কাজে আসবে না। পদ্মার দুই পাড়ে উদ্বোধন করা নতুন দুটি থানার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। থানাগুলোতে পুলিশ কর্মকর্তা ও অন্য সদস্যদের পদায়ন করা হয়েছে। পুলিশের সব ক’টি ইউনিটই নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে। থানাগুলোতে বাছাই করা চৌকস অফিসার পদায়ন করা হয়েছে। গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন সাদা পোশাকে রাস্তায় চলাফেরা করবে। ২৪ ঘণ্টাই নদীতে স্পিডবোট দিয়ে টহল দেবে নৌ পুলিশ। তা ছাড়া থাকবে হাইওয়ে পুলিশও। পুলিশ ও সাদা পোশাকধারী পুলিশ সদস্যদের তদারকি করবে সেনাবাহিনী। যে কোন গুজব ঠেকাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কঠোর নজরদারির নির্দেশ দেয়া হয়েছে। জল পথে কোস্ট গার্ড, স্থল পথে কমান্ডো বাহিনী ও আকাশপথে হেলিকপ্টার টহল দেয়ার প্রস্তুতি সম্পন্ন।

পুলিশ সদর দফতরের এক কর্মকর্তা বলেছেন, পদ্মা সেতুর সর্বশেষ নিরাপত্তা নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত বিশেষ বৈঠকে বেশকিছু নিরাপত্তা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply