শ্রীনগরে মার্কেট নির্মাণ কাজে অনিয়মের অভিযোগ

শ্রীনগর উপজেলার বাঘড়া বাজারে গ্রামীণ বাজার অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় নির্মাধীন বহুতল মার্কেট নির্মাণ কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে নিন্মমানের উপকরণ সামগ্রী। পাইলিং কাজে ছোট সাইজের রাভিস পাথর ও ময়লাযুক্ত সিলেকশন বালু ব্যবহার করতে দেখা গেছে।

জানা গেছে, বাংলাদেশ সরকারের (জিওবি) স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের ২ কোটি ৫৬ লাখ ৫২ হাজার টাকা চুক্তিমূল্যে মার্কেট নির্মাণের কাজ পায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স শাহাবুদ্দিন ট্রেডিং কোম্পনীর কর্ণধার একই জেলার পার্শ্ববর্তী লৌহজং উপজেলার আক্তার হোসাইন খান লাবু। কাজটির তদারকীর দায়িত্বে আছেন শ্রীনগর উপজেলার এলজিইডির সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী। সরকারের কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন মার্কেটির গুরুত্বপূর্ণ পাইলিংয়ের কাজে এ ধরণের অনিয়মের অভিযোগ উঠায় জনমনে প্রশ্ন উঠেছে। গত বছরের জুলাই মাসে বাঘড়া বাজারে মার্কেট নির্মাণ কাজ শুরু করার কথা থাকলে কিছুদিন আগে মার্কেটের পাইলিংয়ের কাজ শুরু হয়। চুক্তি অনুসারে আগামী জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা।

স্থানীয়রা জানায়, নিন্মমানের এসব উপকরণ সামগ্রী কাজে ব্যবহার করায় প্রশ্ন উঠে। এনিয়ে উপজেলা প্রকৌশলী রাভিস পাথর ও অন্যান্য উপকরণ সামগ্রী এ কাজে ব্যবহার করতে নিষেধ করার পরেও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার কোন কথা শুনছেন না। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, মার্কেট নির্মাণ কাজে পালিং কর্মযজ্ঞ চলছে। শ্রমিকরা মাটিযুক্ত রাভিস পাথর ও সিলেকশন বালু সমন্বয়ে সিমেন্টের সংমিশ্রণ করে পাইলিংয়ের কাজ করছে। সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে ঠিকাদারের লোকজন তারাহুড়ো করে এসে মাটিযুক্ত রাভিস পাথরের পানি দেয়া শুরু করে। এছাড়া কোথাও প্রকল্পের বিবরণীর সাইনবোর্ড লাগাতে লক্ষ্য করা যায়নি। এ সময় উপজেলা প্রকৌশলী অফিসের কার্য-সহকারী বাবলুর উপস্থিত পাওয়া যায়। নিন্মমানের পাথর ও বালু ব্যবহারের বিষয়ে জানতে চাইলে বাবলু নিশ্চুপ থাকেন।

এ সময় ঠিকাদারের আক্তার হোসাইন খান লাভুর ছোট ভাই মো. আতাউর রহমান খান সামনে এগিয়ে আসেন। তিনি বলেন, পাথর যেখান থেকে কেনা হয়েছে বিক্রেতারা ছোট সাইজের পাথর দিয়েছে। কয়েক মাস ধরে এখানে পাথর রাখায় তাতে ধূলাবালি জমেছে। নির্মাণ সামগ্রীর মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় এ কাজে প্রায় ৪০ লাখ টাকা লোকসানে পরবো।

প্রকল্পের বিবরণীর সাইনবোর্ড না সাটোনোর বিষয়ে তিনি বলেন, লাগিয়েছিলাম বাতাসে উড়ে গেছে। দুই একদিনের মধ্যে সাইনবোর্ড লাগাবো। এখানে সিডিউল অনুসারেই কাজ করা হচ্ছে।

শ্রীনগর উপজেলা প্রকৌশলী মো. মহিফুল ইসলামের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কয়েকদিন আগে ঠিকাদারকে নিন্মমানের ওই পাথরগুলো কাজে ব্যবহারের জন্য নিষেধ করে এসেছি। এখনই খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি।

নিউজজি

Leave a Reply