ঈদের আনন্দের আড়ালে ভারতীয় পটকা বোমায় সয়লাব টঙ্গীবাড়ী

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী থানার বাঘিয়া বাজারে চলছে ভারতীয় আতশবাজি বিক্রির ধুম। যেখানে দেশের মানুষের মাঝে চলছে দুই বেলা অন্ন খোঁজার তাগিদ, সেখানে প্রতিদিন বাঘিয়া বাজারের দুই দোকানে ধুমসে বিদেশী বোমা-আতশবাজি দেদারসে বিক্রি হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, প্রচণ্ড ভিড় লেগে রয়েছে এ দুই দোকানে। ঈদের পরেই ৩০ এপ্রিল এসএসসি, দাখিল ও ভোকেশনাল পরীক্ষা। পরীক্ষার্থীদের পড়াশোনায়ও বিশাল ব্যাঘাত সৃষ্টি করবে পটকা বোমের আওয়াজ। এ বোমের বিকট আওয়াজে নারী ও ছোট ছোট শিশুদের প্রচণ্ড রকমের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

বিক্রেতা অস্বীকার করতে পারেন তাই তার দোকানের ভাউচারে প্রমাণস্বরূপ কিছু বোমা কেনা হয়েছে। বাঘিয়া বাজার থেকে মুন্সীগঞ্জের দক্ষিণের কয়েকটি জেলার ব্যবসায়ীরা এ আতশবাজি পাইকারি দরে কিনে নিয়ে যান। প্রতি দিনই ভারতীয় এ সব অবৈধ পটকা বোম আনা হচ্ছে এবং পাইকারি বিক্রি করেন।

আতশবাজি বা পটকা বোম সরকারিভাবে নিষিদ্ধ থাকার পরেও প্রকাশ্যে বিক্রি করে যাচ্ছে একই মালিকের দুই দোকান। বিদেশী আতশবাজির নামে শব্দ দূষণ ও শব্দ আতঙ্ক জনজীবনকে করে তুলেছে দুর্বিষহ।

বাঘিয়া বাজার ব্রিজের দক্ষিণে ডানের দুটি দোকানে সকাল ৮টা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলে বেচা বিক্রি। এ দুটি দোকানের মালিক থানা পুলিশকে সুবিধা দিয়ে কয়েক কোটি টাকার আতশবাজি বা বোমা বিক্রি করে থাকেন বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।

এ বিষয়ে আতশবাজি বিক্রয়কারী আলমগীর হোসেন মৃধা বলেন, এ আতশবাজি কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ভারত থেকে বগুড়া হয়ে মুন্সীগঞ্জে আসে। আমরা শুধু টাকা পাঠিয়ে দেই। ঈদ বা পূজাতে আমরা বসে বসেই ব্যবসা করতে পারি। পুলিশ কি আপনাদের সমস্যা করে? এমন প্রশ্নের উত্তরে আলমগীর হোসেন মৃধা বলেন এটা ম্যানেজ করেই করতে হয়।

এ বিষয়ে টঙ্গীবাড়ী থানার অফিসার রাজিব খান বলেন, লাইসেন্স থাকলে বিক্রি করতে পারবে। তবে এ ধরনের বেচা-কেনার তথ্য দিলে বিষয়টি দেখা হবে।
এ বিষয়ে ফোন আলাপে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অর্থ ও প্রশাসন) সুমন দেব বলেন, বিদেশী বাজি বা আতশবাজি আইন দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নয়া দিগন্ত

Leave a Reply