মুন্সীগঞ্জে দুই হাজার পশু উদ্বৃত্ত থাকবে

মুন্সীগঞ্জের খামারগুলোতে এবার জেলার কোরবানির পশুর চাহিদার থেকে বেশি মজুদ আছে। প্রায় দুই হাজার পশু এবার উদ্বৃত্ত থেকে যাবে। তাই হাটে এবার পশুর সংকট না থাকার আশা করছে জেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর।

পশুর হাটগুলো ইজারা দেওয়া হলেও এখনো কোনো হাট বসেনি।

অনেক ক্রেতা ঝামেলা এড়াতে পশু কিনতে খামারকেই প্রাধান্য দিচ্ছেন। খামারগুলোতে কেজি হিসাবে (লাইভ ওয়েট) কিনতে হয় পশু। তবে গোখাদ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় এবার পশুর দামও কিছুটা বেশি।
বৃহস্পতিবার লৌহজংয়ের সাতঘড়িয়ার ডাচ ডেইরি লিমিটেড খামারটি ঘুরে দেখা যায়, সেখানে বিশাল টিনশেডের নিচে সারি সারি পশু বাঁধা।

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে ডাচ ডেইরি ফার্মে এবার কোরবানির জন্য তৈরি করা হয়েছে প্রায় সাড়ে চার শ পশু। ছবি : কালের কণ্ঠ

প্রতিটি পশুর কানে একটি করে নাম্বার ট্যাগ লাগানো। বেশ কয়েকটি পশুর শেডে লেখা—সোল্ড আউড। অর্থাৎ এ পশুগুলো এরই মধ্যে বিক্রি হয়ে গেছে। ক্রেতারা এসে কিছু টাকা জমা দিয়ে এগুলো বুকিং দিয়ে গেছেন। ঈদের আগে আগে এগুলোর লাইভ ওয়েট করে বাকি টাকা দিয়ে পশু নিয়ে যাবেন।

ডাচ ডেইরি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জিল্লুর রহমান রিপন মৃধা জানান, এবার কোরবানির জন্য তাঁদের প্রায় সাড়ে চার শ পশু বিক্রির জন্য প্রস্তুত। গরু, ছাগল, মহিষ এমনকি দুম্বাও রয়েছে তাঁদের খামারে। তবে পশুখাদ্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় বাজারে টিকে থাকা কষ্টকর ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখানে ২০০ থেকে ৩০০ কেজি ওজনের গরু ৫২০ টাকা কেজি দরে, ৩০০ থেকে ৫০০ কেজির গরু ৫৫০ টাকা আর ৪০০ থেকে ৫০০ কেজি পর্যন্ত গরু বিক্রি হচ্ছে ৫৮০ টাকা কেজি দরে। এর ওপরের ওজনের পশু দরদাম করে বিক্রি হচ্ছে।

নিউট্রি ফ্রেশ ডেইরি ফার্মের কর্ণধার আব্দুর রশিদ সিকদার বলেন, ‘বর্তমানে পশুখাদ্যের দাম যে হারে বেড়েছে, তাতে পশুপালন করে লাভ তোলা কষ্টসাধ্য ব্যাপার। যদি ভারত বা মিয়ানমার থেকে গরু আসে, তবে তা খামারিদের জন্য মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দাঁড়াবে।’

সিরাজদিখানের বাসাইল ইউনিয়নের সালমান অ্যান্ড ডেইরি ফার্মের মালিক মেহেদী হাসান সজিব জানান, তাঁর খামারে এবার ৫০টি গরু কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। তবে গোখাদ্যের দাম যে হারে বেড়েছে, তাতে বিক্রি করে লাভ হবে কি না, সেই চিন্তায় আছেন।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. কুমুদ রঞ্জন মিত্র জানান, মুন্সীগঞ্জে পশু মোটাতাজাকরণের খামার রয়েছে ৯৯৯টি। এবার কোরবানির জন্য জেলায় মোট ৪১টি পশুর হাট ইজারা দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, জেলায় এ বছর পশুর উৎপাদন বেশি হয়েছে। এবার জেলায় মোট পশুর উৎপাদন হয়েছে এক লাখ ১৭ হাজার ৪৫৩টি। জেলার চাহিদা মিটিয়ে প্রায় দুই হাজার পশু উদ্বৃত্ত থেকে যাবে।

কালের কণ্ঠ

Leave a Reply