সেপ্টেম্বরেই শুরু হচ্ছে পঞ্চবটি-মুক্তারপুর সড়ক প্রশস্তকরণ কাজ

মুন্সীগঞ্জের পঞ্চবটি-মুক্তারপুর সড়ক প্রশস্ত ও দোতলাকরণে ৩৪ একর জমি অধিগ্রহণ, সয়েল টেস্ট এবং টেস্ট পাইল সম্পন্ন হয়েছে। এখন চলছে পাইলের গভীরতার চূড়ান্ত নকশা প্রণয়ন। একই সঙ্গে অধিগ্রহণ ভূমির প্রায় ৪০ হাজার স্থাপনা অপসারণ করা হয়েছে। প্রকল্প পরিচালক বলছেন, আগামী মাসেই পুরোদমে শুরু হবে নির্মাণযজ্ঞ।

মুন্সীগঞ্জ জেলা শহরের সঙ্গে রাজধানীর যোগাযোগের পথ পঞ্চবটি-মুক্তারপুর সড়কের গড় প্রশস্ততা মাত্র সাড়ে ৫ মিটার। সিমেন্ট কারখানা, হিমাগার, গার্মেন্টসহ ভারি শিল্প কারখানার ৫০ মেট্রিক টন পর্যন্ত ওজনের যান চলাচল করে। কিন্তু আঁকাবাঁকা সড়কে দুর্ঘটনা ও যানজট যেন নিত্যসঙ্গী। তাই সড়কটির আধুনিকায়নের সয়েল টেস্ট এবং টেস্ট পাইলের কাজ শেষে চলছে পাইলের গভীরতার চূড়ান্ত নকশা প্রণয়ন। আর এগুচ্ছে কাশীপুর ও গোগনগর সেতুর পাইলিং। পাশাপাশি অধিগ্রহণ করা ৩৪ একর ভূমির প্রায় ৪০ হাজার স্থাপনা অপসারণ করা হয়েছে।

পঞ্চবটি-মুক্তারপুর সড়ক রূপান্তর হচ্ছে আধুনিক সড়ক নেটওয়ার্কে। পঞ্চবটি মোড় থেকে ছয় লেনে ৩১০ মিটার করে ফতুল্লা ও নারায়ণগঞ্জ দুই দিকে প্রসারিত হবে। আর কাশিপুর থেকে শীতলক্ষ্যা-৩ সেতু পর্যন্ত দোতলা হবে দুই লেনে। একই সাথে পুরনো সড়কটি উন্নীত হবে আরও দুই লেনে। আরেকটি গোলচত্ত্বর হবে চর সৈয়দপুরের শীতলক্ষ্যা-৩ পয়েন্টে। এই গোল চত্বর থেকে মুক্তারপুর সেতু পর্যন্ত চার লেনের ৩ দশমিক সাত পাঁচ কিলোমিটার সড়ক হবে।

মুক্তারপুর-পঞ্চবটি সড়ক প্রশস্ত ও দোতলাকরণ প্রকল্পের পরিচালক শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘২৭ জুলাই এই প্রকল্পে বর্তমানে ভূমি অধিগ্রহণের কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন থেকে আমাদেরকে বুঝিয়ে দিয়েছে। এই অ্যালাইন্টমেন্টের প্রায় চার হাজারের মতো স্ট্রাকচারের বেশির ভাগ এরইমধ্যে ভাঙা হয়ে গেছে। কিছু কিছু স্ট্রাকচার এখনো বাকি আছে সেগুলো ভাঙার কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তবে আমরা সাব সয়েল কাজ সম্পন্ন করেছি। সয়েল টেস্টের যত ধরনের কাজ আছে সব কমপ্লিট হয়েছে। লোড টেস্টের কাজ কমপ্লিট হয়ে গেছে। সয়েল টেস্ট ও লোড টেস্টের ওপর নির্ভর করে আমাদের পাইল লেন্থ নির্ধারণ করা হচ্ছে। সে অনুপাতে কন্ট্রাক্টর রিপোর্টগুলো সাবমিট করেছে। অনেকগুলো রিপোর্ট সাবমিট করবে। আমরা খুব দ্রুত গতিতে কাজগুলো করার চেষ্টা করছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনারা জানেন, এরআগে কাশিপুর ব্রিজ ও গৌরনগর ব্রিজের প্রায় সবগুলো পাইল পাইলের কাজই সম্পন্ন করেছি। গৌরনগর ব্রিজের ৩২টি পাইলের মধ্যে আমরা ২৫টির কাজ এরইমধ্যে সম্পন্ন করেছি। এখন আমরা মূল যে এলিভেটেড রোড আছে সেই কাজগুলো শুরু করব। আশা করছি খুব শীঘ্রই এই কাজগুলো শুরু করতে পারব এবং এ বছর আমাদের টার্গেট হচ্ছে ৩৫ শতাংশ প্রগ্রেস। অর্থাৎ জুলাই ২০২৩ থেকে ২০২৪ এর মধ্যে আমরা সম্পন্ন করব বলে আশা করছি। এবং সেভাবেই আমাদের সব রকম প্রস্তুতি সম্পন্ন করছি। জমি নিয়ে আমাদের সমস্যা ছিল। জমি যেহেতু নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন থেকে আমাদের বুঝিয়ে দিয়েছে এখন আমরা পুরো গতিতে কাজ শুরু করব। এই কাজের উদ্বোধনের জন্য আমরা এরইমধ্যে দুটি কাজের জায়গা নির্ধারণ করেছি। একটি হচ্ছে কাশিপুরের এরিয়াতে আরেকটি পঞ্চপট্টি এরিয়ায়। চূড়ান্তভাবে লোকেশনটা সিলেক্ট হলেই অন্যান্য যে আনুষঙ্গিক কাজ আছে সেগুলো সম্পন্ন করব।’

চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান স্যানডন ও সিএসআই তিন বছরের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের করবে। পঞ্চবটি থেকে মুক্তারপুর পর্যন্ত সোয়া ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটির আধুনিকায়নে প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ২৪২ কোটি ৭৭ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

সময় সংবাদ

Leave a Reply