গজারিয়ায় ফায়ার সার্ভিস স্টেশন থাকলেও নেই ডুবুরি দল

গজারিয়ায় ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সে নেই ডুবুরি দল। কোনো দুর্ঘটনায় উদ্ধার তৎপরতা চালাতে ডুবুরি দল আসে ঢাকা থেকে। এতে দুর্ঘটনায় জানমালের ক্ষয়ক্ষতি বেড়ে যায়।

মুন্সিগঞ্জ জেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন সূত্রে জানা গেছে, মুন্সিগঞ্জ জেলায় ৬টি উপজেলায় প্রতিটিতেই ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন রয়েছে। এর মধ্যে কোন স্টেশন ডুবুরি দল না থাকায় রাজধানী ঢাকার ফায়ার সার্ভিসের বিভাগীয় স্টেশনে খবর দিয়ে আনতে হয় ডুবুরি সদস্য।

নদীবেষ্টিত গজারিয়া উপজেলায় রয়েছে দেশের সুনামধন্য শিল্প কারখানা, যা বেশিরভাগ নদীর তীরভর্তি এলাকায় অবস্থিত। যদিও শিল্প কারখানার ভিতরে দুর্ঘটনা প্রতিরোধের ব্যবস্থা রয়েছে। তবে নদীতে টলার, মালবাহী জাহাজ, লঞ্চসহ শ্রমিক, শিশু ডুবে যাওয়ার ঘটনা ঘটলে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে ডুবুরি দল না থাকায় পরতে হয় বিপত্তিতে, ডুবুরির অপেক্ষা করতে হয় অনেক সময়।

গত বছর ইমামপুর ইউনিয়নে নৌকা পথে পিকনিক করতে যাওয়ার জন্য ভাড়া করা লঞ্চ নোঙ্গর করতে গিয়ে বিদ্যুৎ আইতো হয়ে এক কলেজ ছাত্র নদীতে তলিয়ে যায়। ঘটনার ১০ ঘণ্টা পর ঢাকা থেকে ডুবুরি দল এসে কলেজ ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করে।

উপজেলার বালুয়াকান্দী ইউনিয়নের তেতৈতলা গ্রামের মো. কামাল উদ্দিনের কলেজ পড়ুয়া ছেলে ইমন হোসেন মেঘনা নদীতে ডুবে মারা যায়। তখনও ডুবুরি দল না থাকার এলাকার লোকজন উদ্ধার অভিযান চালিয়ে দেড় দুই ঘণ্টা পর তাকে উদ্ধার করে। গত ২৬ আগস্ট উপজেলার হোসেন্দী হোসেন্দী ইউনিয়নের হোসেন্দী গ্রামের কাজলী নদীতে গোসল করতে গেলে আনিসা আক্তার নামে এক মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর পানিতে তলিয়ে যায়। এ ঘটনায় স্থানীয়রা দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় মরদেহ উদ্ধার করে।

উপজেলার সচেতন মহল মনে করেন মুন্সিগঞ্জ জেলার সবকটি উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন রয়েছে। তবে এখানে নেই কোন ডুবুরি দল। নদীবৃষ্টিত এলাকায় ডুবুরি দল থাকলে ভালো হয়।

গজারিয়া ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন কর্মকর্তা মো. রিফাত মল্লিক জানান, আমরা যে কোনো দুর্ঘটনার মোকাবিলার সবরকম সরঞ্জাম লোকবল রয়েছে। আমাদের উপজেলা ডুবুরি দল নেই এমন নয়, জেলা পর্যায়েও কোন স্টেশনে ডুবুরি দল নেই। এই জাতীয় পরিস্থিতিতে আমরা বিভাগীয় স্টেশনে যোগাযোগ করি।

নিউজজি

Leave a Reply