দিঘিরপাড় বাজারে ভাসমান হাটে কোটি টাকার পাট বেচাকেনা

কাজী সাব্বির আহমেদ দীপু: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার দিঘিরপাড় বাজারের পাশে পদ্মা নদীতে বসে বিশাল পাটের হাট। প্রতি শুক্র ও সোমবার বসে এই হাট। পদ্মায় ট্রলারের মধ্যে পাট রেখে বেচাকেনা করেন ক্রেতা-বিক্রেতারা। প্রতি হাটে ৭ থেকে ৮ হাজার মণ পাট বেচাকেনা হয়। যার মূল্য প্রায় কোটি টাকা।

ভাসমান এই পাটের হাট ব্রিটিশ আমল থেকে চলে আসছে। জুন মাসের মাঝামাঝি সময়ে এই হাট শুরু হয়। তিন মাস ভাসমান ট্রলারে পাটের হাট বসে। মুন্সীগঞ্জ ছাড়াও পাশের ফরিদপুর, শরীয়তপুর, মাদারীপুর, চাঁদপুর এলাকার চাষিরা এ হাটে পাট বিক্রি করতে আসেন বলে দিঘীরপাড় বাজার সমিতি সূত্রে জানা গেছে।

অন্যদিকে সিন্ডিকেটের কারণে পাটের দাম কমে গেছে। লাভ দূরের কথা কৃষক উৎপাদন খরচও ওঠাতে পারছেন না। মণপ্রতি পাট উৎপাদন করতে ১৪’শ টাকা খরচ হলেও বিক্রি করতে হচ্ছে লোকসান দিয়ে ১১’শ থেকে ১২’শ টাকা দরে। সম্প্রতি ওই হাটে গিয়ে দেখা যায়, দিঘীরপাড় বাজারের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া পদ্মা নদীতে পাটভর্তি শতাধিক ট্রলার। ভোরের আলো ফোটার পর থেকে চাষি ও ব্যবসায়ীরা পাটভর্তি ট্রলার নিয়ে হাজির হয়েছেন পদ্মার পাড়ে। এর মধ্যে কিছু ট্রলার পাড়ে ভিড়ানো । কিছু নদীর মধ্যে নোঙর করা। বিভিন্ন জেলা থেকে কৃষক ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা এসব ট্রলার নিয়ে এসেছেন। দরদাম করে কেউ পছন্দের পাট কিনছেন, কেউবা কাঙ্ক্ষিত দামে পাট বিক্রি করছেন। শুক্রবার গড়ে দেড় হাজার টাকা মণ দরে পাট বিক্রি হয়। তবে দিন দিন কমছে পাটের দাম। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন চাষিরা। তারা জানান, ১ মণ পাট উৎপাদন করতে খরচ হয় ১৪০০-১৫০০ টাকা। অথচ বর্তমানে তারা ১০০০-১২০০ টাকায় পাট বিক্রি করছেন।

বাজারের ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা জানান, এ হাট থেকে পাইকারি ব্যবসায়ীরা পাট কিনে দেশের বিভিন্ন স্থানের পাটকলে বিক্রি করেন। প্রতি মৌসুমে ৩০-৩৫ কোটি টাকার বেচাকেনা হয়। মুন্সীগঞ্জের বাহেরচর এলাকার পাটচাষি কামাল মিয়া বলেন, এ বছর ১২ গন্ডা (৮৪ শতাংশ) জমিতে পাট চাষ করছিলেন। ৩০ হাজার টাকা খরচ করে চাষাবাদের পর উৎপাদন হয়েছে ২৫ মণ পাট। বর্তমান বাজার মূল্য অনুযায়ী ২৫ মণ পাট বিক্রি করা যাবে ২৫ হাজার টাকায়। লাভতো দূরে থাক উল্টো ৫ হাজার টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে।

শরীয়তপুরের বানিয়াল এলাকার পাটচাষি দুলাল হোসেন বলেন, পাট বিক্রি করতে এসে বিক্রি করতে পারছেন না। উৎপাদন খরচের কম মূল্যে পাট কেনাবেচা হচ্ছে। অপর পাটচাষি আলাউদ্দিন মিয়া বলেন, দিন দিন পাটের দাম কমছে। সিন্ডিকেটের কারণে পাটের দাম কমে গেছে। পাট ব্যবসায়ী কামাল হোসেন বলেন, এ বছর শুরুর দিকে পাটের দাম ২৫০০ টাকা ছিল। এখন ১৫০০ টাকার নিচে হয়ে গেছে। আগে বেশি টাকায় পাট কিনে ঘরে রেখেছিলেন। এখন দাম কমে যাওয়ায় লোকসান দিয়ে বেচতে হবে।

দিঘীরপাড় বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক মফিজল মোল্লা বলেন, পদ্মা নদীর মধ্যে ১ কিলোমিটারের বেশি জায়গাজুড়ে এই হাট বসে। মুন্সীগঞ্জ ছাড়াও ফরিদপুর, শরীয়তপুর, মাদারীপুর চাদঁপুর জেলার পাটচাষিরা এই হাটে পাট নিয়ে আসেন। এই হাট থেকে নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা ব্যবসায়ীরা পাইকারি পাট কিনে বিভিন্ন পাটকলে বিক্রি করে থাকেন।

সমকাল

Leave a Reply