মুন্সীগঞ্জের শিলই ইউনিয়ন ভূমি অফিস : ভবন আছে সেবা নেই

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার শিলই ইউনিয়নে ভূমি সেবা পেতে বিড়ম্বনা পোহাতে হচ্ছে ইউনিয়নবাসীকে। শিলই ইউনিয়ন ভূমি অফিসে গিয়ে যায়, ভবন আছে অথচ সেবা প্রদানের কোনো কার্যক্রম নেই।

স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা যায়, কয়েক বছর ধরেই এই ইউনিয়ন ভূমি অফিসটি বন্ধ রয়েছে। মিউটেশন, ভূমি উন্নয়ন কর, খতিয়ান পর্চা, ই নামজারি, জমির ম্যাপ, বিভিন্ন পরামর্শসহ অন্যান্য ভূমি সেবা পেতে স্থানীয়দের পার্শ্ববর্তী চিতলীয়া বাজার ইউনিয়ন ভূমি অফিসে যেতে হচ্ছে।

জানা যায়, ২-৩ বছর আগে শিলই ইউনিয়ন ভূমি অফিসে একজন কর্মকর্তাকে আনা হয়েছিল। মাঝে মধ্যে ওই কর্মকর্তা এসে কার্যক্রম পরিচালনা করতেন। তবে এখন আর আসেন না। কার্যক্রমও বন্ধ। অফিসে ঝুলছে তালা।

বাধ্য হয়েই স্থানীয়রা ভূমিসংক্রান্ত সব সেবা পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন থেকে গ্রহণ করছেন। তাছাড়া পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নে ভূমি সেবা পেতে বাড়তি খরচ আর সময় অপচয় করতে হচ্ছে উপকারভোগীদের। সেই সঙ্গে রয়েছে জটিলতাও।

স্থানীয় মুরব্বি আনসার উদ্দিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আগে আমরা হাতের কাছেই ভূমি সেবা পেতাম। ২-৩ বছর ধরে এ ইউনিয়ন ভূমি অফিসটি বন্ধ আছে। এখন আমাদের সব কার্যক্রম করতে হয় চিতলীয়া বাজার ভূমি অফিসে। একদিকে সময় অপচয়, অন্যদিকে অর্থ ব্যয়। এ ছাড়া জটিলতা তো আছেই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজ নারী বলেন, ইউনিয়ন ভূমি অফিস আছে কিন্তু আমরা কোনো সেবা পাচ্ছি না। খাজনা দিতে যেতে হয় সেই চিতলীয়া বাজার। খাজনা না দিলেও সমস্যা। এই ভবনটি পুরনো হয়ে গেছে। নতুন ভবন করা হলে আমাদের কষ্ট লাঘব হবে।

উপজেলা ভূমি অফিস বলছে, শিলই ইউনিয়নের ভূমি অফিসটি খুব পুরনো ভবন। তারপরও বিষয়টি দেখে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিষয়টি স্বীকার করে শিলই ইউপি চেয়ারম্যান পারভেজ মৃধা বলেন, আমি এ বিষয়টি আগের উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বেশ কয়েকবার অবগত করেছি। বারবার বলেও কোনো লাভ হচ্ছে না। জনবল দিয়ে কার্যক্রম চালানোর জন্য উপর মহলে জানিয়েছি। বিষয়টি এভাবেই আছে।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) নামমুল হুদা বলেন, নতুন ভবনের জন্য মন্ত্রীকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। আশা করছি খুব দ্রুতই শিলই ইউনিয়নে ভূমি অফিসের নতুন ভবন নির্মাণ করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফিফা খান ভোরের কাগজকে বলেন, বিষয়টি অবগত হয়েছি। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।

ভোরের কাগজ

Leave a Reply