গজারিয়ায় নামমাত্র দামে বিক্রি হলো বন বিভাগের গাছ

মরা ও ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনায় মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ৪৬টি গাছ নামমাত্র দামে বিক্রি করে দিয়েছেন উপজেলা বন কর্মকর্তা। স্থানীয়দের অভিযোগ উপজেলা বন কর্মকর্তা কাঠ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সুবিধা নিয়ে তিনি প্রাক্কলনে কাঠের পরিমাণ কম দেখিয়েছেন। এ দিকে অল্প টাকায় গাছ বিক্রি করার কারণে কাক্সিক্ষত পারিশ্রমিক না পেয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন উপকারভোগীরা।

জানা যায়, মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বেশ কয়েকটি এলাকায় সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির মাধ্যমে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপণ করা হয়। সম্প্রতি বাউশিয়া, ভবেরচর, ইমামপুর, ভাটেরচর, বালুয়াকান্দি এলাকার ৪৬টি গাছকে মরা ও ঝুঁকিপূর্ণ দেখিয়ে মাত্র এক লাখ ৪৭ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়। এতে প্রতিটি গাছের গড় দাম পড়েছে মাত্র তিন হাজার ১৯৫ টাকা। ২৫-৪০ বছর বয়সী এসব গাছের বাজার মূল্য আরো কয়েকগুণ বেশি বলে ধারণা করছেন স্থানীয় জনগন। তার বলছেন, বাহ্যিক বড় ধরনের কোনো সুযোগ সুবিধা নিয়ে উপজেলা বন কর্মকর্তা এত অল্প দামে এই মূল্যবান গাছগুলো বিক্রি করে দিয়েছেন।

সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির উপকারভোগীদের সাথে সরেজমিন কথা বলে জানা যায়, শুধুমাত্র ভবেরচর কালীতলা ব্র্যাক অফিস থেকে করিম খাঁ গ্রাম পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার রাস্তায় ১৮টি গাছ মরা দেখিয়ে বিক্রি করা হয়েছে। অথচ এখানে মাত্র চারটি গাছ মরা ছিল। শুধুমাত্র বিক্রি করার জন্য উপজেলা বন কর্মকর্তা গাছগুলো মরা দেখিয়েছেন। সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির জন্য উপজেলা যে কয়েকটি সমিতি রয়েছে সেগুলোর তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ২০১৪ সালের পর যতগুলো সমিতি গঠন করা হয়েছে সেগুলোতে উপজেলা বন কর্মকর্তার পরিবারের সদস্যরা রয়েছেন।

সমিতিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে বন কর্মকর্তার ছেলে পারভেজ ইসলাম প্রান্ত, চাচা মজিবর রহমান, শ্বশুরবাড়ির আত্মীয় সাবেক ইউপি সদস্য মমিনুর রহমান, সাবেক ইউপি সদস্য মমিনুল ইসলামসহ আর্থিকভাবে স্বচ্ছল কয়েকজন প্রভাবশালীদেরকেও। অথচ সমিতির সদস্য হয়ে কোন দিনও গাছ পরিচর্যার কাজ করেননি তারা।
করিম খাঁ গ্রামের বাসিন্দা উপকারভোগী মোহাম্মদ আলী বলেন, আমার স্ত্রী ফাহিমা বেগম এই সমিতির সদস্য ছিলেন। তিনি মারা যাওয়ার পর আমি সদস্য হয়েছি। গাছগুলো অনেক যতেœ পরিচর্যা করে বড় করেছি। গত দুই সপ্তাহ আগে আমাদের এই এলাকা থেকে বেশ কয়েকটি গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। অথচ বিষয়টি আমাদেরকে জানানো হয়নি। উপজেলা বন বিভাগ অফিসে যোগাযোগ করার পর তারা গাছ কাটার কথা স্বীকার করেন এবং আমাদের লভ্যাংশ পাওয়ার জন্য আবেদন করতে বলেন। পরে জানতে পারি গাছগুলো যে দামে বিক্রি করা হয়েছে, তা অতি নগন্য। একেকটি গাছের বাজার মূল্য ১০-১৫ হাজার টাকা হওয়ার কথা।
আরেক উপকারভোগী সুফিয়া বেগম বলেন, গাছগুলো অনেক কম দামে বিক্রি করা হয়েছে। এতে আমরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। গাছগুলোর মূল্য আরো কয়েকগুণ বেশি টাকায় বিক্রি করা যেত। গাছ বিক্রির মূল্য শুনে আমরা হতাশ। বনবিভাগের অসৎ কর্মকর্তাদের কারণে সামাজিক বনায়নে মানুষ আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে। এতে প্রান্তিক মানুষের পাশাপাশি সরকারও ক্ষতিগ্রস্ত হবে। স্থানীয় বাসিন্দা শামীম আহমেদ বাঘ বলেন, সম্প্রতি এই গাছগুলোর চেয়ে আকারে ছোট আমার বাড়ির তিনটি গাছ আমি ৩২ হাজার টাকায় বিক্রি করেছি। সে হিসেবে বিক্রীত গাছগুলোর একেকটির দাম কমপক্ষে ১৫ হাজার টাকা হওয়া উচিত ছিল।

বিষয়টি সম্পর্কে ইমামপুর ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য জাকারিয়া বলেন, আমি গাছগুলো লাগাতে দেখেছি। গাছগুলোর বয়স প্রায় ৩০ বছর। কাজগুলো যে দামে বিক্রি করা হয়েছে তা বর্তমান বাজারমূল্যের চেয়ে অনেক কম। শুনছি ফরেস্টার ভাতিজা মোস্তফা গাছগুলো কেটে নিয়ে গেছেন। আমার স্ত্রীও সমিতির সদস্য ছিলেন। কম দামের গাছ বিক্রি করায় তিনি অসন্তুষ্ট।

বিষয়টি সম্পর্কে উপজেলা বন কর্মকর্তা (ফরেস্টার) আসাদুজ্জামান শফি বলেন, আমি বয়স্ক মানুষ। আমার পক্ষে কাছে উঠে গাছ মেপে এস্টিমেট (প্রাক্কলন) প্রস্তুত করা সম্ভব নয়। আমি চোখের আন্দাজ এবং আমার অভিজ্ঞতার আলোকে প্রাক্কলন প্রস্তুত করেছি। নির্দিষ্ট সব প্রক্রিয়া মেনে টেন্ডার করে গাছগুলো বিক্রি করা হয়েছে। আমি কাঠ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিতে কাঠের পরিমাণ কম দেখেছি এমন অভিযোগ সত্য নয়। আমি আত্মীয়স্বজনদের সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির উপকারভোগী সমিতির সদস্য বানিয়েছি- এমন অভিযোগও সঠিক নয়। রাস্তার ধারে বাড়ি এমন ব্যক্তি এবং গরিব দুস্থদের সমিতির সদস্য করা হয়েছে।

বিষয়টি সম্পর্কে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ জানান, গাছ বিক্রিসংক্রান্ত কোনো কাজে আমি জড়িত ছিলাম না। বিষয়টি সম্পর্কে আমাকে অবগত করাও হয়নি। যে দামে গাছগুলো বিক্রি করা হয়েছে তাতে আমিও অবাক হয়েছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা উচিত।

মুন্সীগঞ্জ সামাজিক বনায়ন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু তাহের বলেন, গাছগুলো কেটে বিক্রি করে ফেলা হয়েছে। ছবিতে যা দেখেছি গাছগুলোর এক একটির বাজার মূল্য ৮-১০ হাজার টাকা হওয়ার কথা। গাছ বিক্রিতে কোনো অনিয়ম হয়েছে কিনা বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখব।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.