শ্রীনগরে রেলের জায়গা দখল করে হাউজিং কোম্পানির জন্য রাস্তা

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে রেলওয়ের জায়গা দখল করে একটি হাউজিং কোম্পানির স্বার্থে রাস্তা নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে।
উপজেলার ষোলঘর ইউনিয়নের কেয়টখালীতে রেলের আন্ডারপাসের দক্ষিণ দিকে রেলওয়ের জমির ওপর প্রায় অর্ধ কিলোমিটার দীর্ঘ রাস্তাটির নির্মাণকাজ চলছে। অথচ হাউজিং কোম্পানিসহ আড়িয়ল বিলের সব স্থাপনা সরিয়ে নিতে উচ্চ আদালতের সিদ্ধান্ত রয়েছে।
অভিযোগ উঠেছে- ষোলঘর ইউনিয়ন পরিষদের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মকদমের নেতৃত্বে রেললাইনের পশ্চিম পাশে পুষ্পধারা হাউজিং কোম্পানির স্বার্থে রাস্তাটি নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিতব্য রাস্তাটি নিয়ে মকদম মেম্বার এলাকায় প্রচার করেছেন যে, উপজেলা পিআইও অফিস থেকে কাবিটা প্রকল্পের আওতায় রাস্তাটির জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। অথচ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের কার্য সহকারী জানান, উল্লেখিত জায়গায় কাবিটার কোনো বরাদ্দই দেয়া হয়নি।

রেলের জায়গার পাশের বাড়িঘরের বসবাসকারীরা জানান, কয়েক মাস আগে মকদম মেম্বার তাদেরকে বলেন যে, এখান দিয়ে রাস্তা নির্মাণের জন্য রেলওয়ের সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে অনুমোদন এনেছেন। তাই এখানকাবাসীর কাঁচা-পাকা স্থাপনা ভাঙার পাশাপাশি অসংখ্য গাছপালা কাটা পড়ছে। এরই ধারাবাহিকতায় রাস্তা নির্মাণকাজের জন্য মকদম মেম্বার ঘরবাড়ি ভেঙে নিচ্ছেন।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেসওয়ের কেয়টখালী রেলওয়ের আন্ডারপাস-সংলগ্ন দক্ষিণ দিকে পুষ্পধারা হাউজিং প্রপার্টি পর্যন্ত প্রায় অধা কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণের জন্য ড্রাম ট্রাকে করে বালু ফেলা হচ্ছে। রেললাইনের নয়নজুলী থেকে প্রায় ২০ ফুট প্রস্থে বালু ভরাট করা হচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, কয়েক মাস আগে মকদম মেম্বার এলাকাবাসীর স্বার্থে রাস্তাটি নির্মাণের কথা বলে তিন শতাধিক পরিবারের স্বাক্ষর নেন। এখন বলছেন ঘরবাড়ি ও গাছপালা কেটে নেয়ার জন্য। তাই বাধ্য হয়ে কেটে নিচ্ছেন। আক্তারুজ্জামান নামে এক ব্যক্তি বলেন, মকদম মেম্বার বলেছেন সরকারিভাবে বরাদ্দ হয়েছে তাই স্থাপনা সরিয়ে নিতে হবে। স্থানীয় আরেক বাসিন্দা আওলাদ হোসেন বলেন, আমার জানামতে পিআইও’র বরাদ্দ হয়নি। তারপরেও রাস্তা নির্মাণের জন্য আমার বসতবাড়ির পাকা স্থাপনা ভেঙে ফেলছি।

এ বিষয়ে জানতে পুষ্পধারার সংশ্লিষ্টদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
ইউপি সদস্য মকদম হাওলাদারের কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কাবিখার বরাদ্দে এলাকাবাসীর জন্য রাস্তা
নির্মাণ হচ্ছে। কিন্তু কাবিখার বরাদ্দের রাস্তার কাজে কেন ড্রাম ট্রাকে করে রাতের আঁধারে বালু ফেলা হচ্ছে- এমন প্রশ্ন তিনি এড়িয়ে যান। রেলওয়ের একোয়ারকৃত জায়গার ওপর দিয়ে নির্মাণাধীন রাস্তার জন্য সংশ্লিষ্ট দফতরের অনুমোদন আছে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

শ্রীনগর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাফফাত আরা সাঈদ জানান, বিষয়টি তার জানা নেই, তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.