হারিয়ে যাচ্ছে মুন্সীগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী ‘পান চাষ’ : উৎপাদন খরচ বেশি

তোফাজ্জল হোসেন শিহাব : পান একটি নিত্যপ্রয়োজনীয় কাঁচাপণ্য। দেশের প্রায় সব জেলাতেই কম বেশি পানের চাষ হয়। পান মুখরোচক খাবার হিসেবে এর কদর রয়েছে অনেকটাই। মুন্সিগঞ্জ জেলা সদরের রামপাল ইউনিয়ন, হাতিমারা, পঞ্চসার ইউনিয়নের রতনপুর, জিয়সতলা, চাম্পাতলা, রামেরগাঁও, ধলাগাঁও, চন্দনতলাসহ বিভিন্ন এলাকার স্বল্প পরিসরে পান চাষ করা হয়।


এসব এলাকার মাটি ও আবহাওয়া পান চাষের উপযোগী হওয়ায় শত বছর আগেও ব্যাপক হারে পান চাষ হতো। উৎপাদন খরচ বেশি হওয়ায় এবং প্রশিক্ষন ও সহায়তার অভাবে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে পান চাষিরা। ফলে হারিয়ে যেতে পারে মুন্সীগঞ্জের এই ঐতিহ্য।


সূত্রে জানা যায় এখানকার উৎপাদিত পান জেলার চাহিদা পূরণ করে দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করা হয়। বিভিন্ন জায়গা থেকে পাইকাররা এসে বাজার এবং পানের বরজ থেকে সপ্তাহে দুইদিন পান সংগ্রহ করে থাকে।

সপ্তাহে দুদিন পাইকারদের চাহিদা অনুযায়ী পান বাজারজাত করেন চাষিরা। রতনপুর চাম্পাতলা এলাকার পানচাষি মো. নুর হোসেন প্রতিবেদককে বলেন, ৮০ শতক জমিতে পানের আবাদ করেছি। পারিবারিকভাবে বহু বছর ধরেই পান চাষ করি। সংসারের একমাত্র আয়ের উৎস পান। বর্তমানে পানের উৎপাদন খরচ বেশি হওয়ায় চাষ অনেকটাই কমিয়ে দিয়েছি। কোনো প্রকার সহযোগিতা ও প্রশিক্ষণ দেয় না কৃষি দপ্তর। বাপ- দাদারা এই চাষ করে এসেছেন, এখন আমরা করছি। কমবেশি লোকসান হয়। তবুও চাষ করা ছাড়তে পারিনা। তবে আবাদ অনেটাই কমিয়ে দিয়েছি।

চাষি শাহাদাত হোসেন বলেন, ২০ শতক জমিতে পান চাষ করেছি। গতবছর লোকসান গুনতে হয়েছে। এবারও একই অবস্থা। দাম খুবই কম। তবে উৎপাদন বাড়ানো, রোগব্যাধি নির্মূল, স্যার ও কীটনাশকের সঠিক ব্যবহার সম্পর্কে ধারণা না থাকায় নতুন করে কেউ পান চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। উৎপাদন খরচ বেশি এবং দাম কম হওয়ায় পুরনোরাও মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন পান চাষ থেকে। ফলে অনেকটাই কমে যাচ্ছে পানের আবাদ। পান আবাদ ও বিক্রি করা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কৃষক জানান, বছরের আষাঢ়- শ্রাবন মাসে পানের চাষ শুরু হয়। বিক্রির উপযোগী হতে ৪ মাস সময় নেয়। জাত অনুসারে বিক্রির উপযোগী হতে কিছু পানের ৬/৭ মাস সময় লাগে। বিভিন্ন জাতের মধ্যে গয়াসুর, চালতা গোটা, মাহাকাল ইত্যাদি জাত উল্লেখযোগ্য।

তবে উৎপাদন হিসেবে পানের দাম অত্যন্ত কম। এক বিড়া পানে আশি পিচ। যার বর্তমান বাজার মূল্য ৩০-৬০ টাকা আর শীত মৌসুমে ৫০-৮০ টাকা বিক্রি হয়। ব্যয় অনুযায়ী তেমন লাভ হয় না। পরিবারের বিকল্প উপার্জন না থাকায় চরম অর্থকষ্টে পান চাষিরা।
চাষিরা আরো জানান, আগে এখানে শত শত বিঘা জমিতে পান চাষ করা হতো। এখন অনেকটাই কমে গেছে। সরকার থেকে আমাদের কোনো সহযোগিতা করা হয় না। কোনো প্রশিক্ষণ করায় না। তবে সরকারি সুযোগ সুবিধা পাওয়া গেলে আবারো পান চাষে আগ্রহ ফিরবে অনেকের। এমনটাই দাবি স্থানীয় কৃষক ও সচেতন মহলের।

আর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন ভোরের কাগজকে জানান, পান চাষে সরকারিভাবে কোনো ধরনের প্রণোদনার সুযোগ নেই।

উৎপাদন বৃদ্ধিতে পান চাষিরা প্রশিক্ষণে আগ্রহী হলে তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। তবুুও তাদের বিষয়টি দেখব।

 

ভোরের কাগজ

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.