শ্রীনগরে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয়ে পুনরায় আলুচাষের প্রস্তুতি

উজ্জ্বল দত্ত: ঘূর্ণিঝড় মিগজাউমের ভারি বৃষ্টিপাতের ফলে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে অসংখ্য আলু ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। বীজ বপনকৃত অধিকাংশ জমিতে এখন বৃষ্টির পানি শুকায়নি। তবে এরই মধ্যে বিভিন্ন স্থানে আক্রান্ত আলুর জমিগুলো অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করে বীজ, সার, জমি চাষসহ বাড়তি শ্রমিক মজুরি দিয়ে পুনরায় আলু চাষের প্রস্তুতি নিচ্ছেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা। এর আগে অনাকাক্সিক্ষত বৃষ্টিতে এ অঞ্চলের শত শত আলু চাষির স্বপ্ন ভঙ্গ মাটিতে মিশে যায়। প্রায় ৬০০ হেক্টর আলু জমি নষ্ট হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

অসংখ্য ফসলি জমিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এই জলাবদ্ধতায় মৌসুমি রবিশস্য আবাদে স্থানীয়রা বিড়ম্বনার পাশাপাশি ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। উপজেলায় এ বছর ২১০০ হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে স্থানীয় আলুচাষি মাঠে কাজ শুরু করেন। বৃষ্টির আগমুহূর্ত প্রায় ৬০০ হেক্টর জমিতে বীজবপন সম্পন্ন করে আলু চাষিরা। অথচ বৃষ্টিপাতের ফলে আলু জমি ডুবে ক্ষতিগ্রস্ত হন। তবে আক্রান্ত জমিতে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করে লোকসানের দুশ্চিন্তা মাথায় নিয়ে পুনরায় আলু চাষের স্বপ্ন দেখছেন তারা। এদিকে স্থানীয় সবজির হাটবাজারে আগাম নতুন আলুর কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭০-৭৫ টাকা। অপরদিকে হিমাগারের আলুর কেজি কেনাবেচা হচ্ছে ৫৫-৬০ টাকা করে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের মধ্যে বীরতারা, আটপাড়া, তন্তর, কুকুটিয়া ও ষোলঘর ইউনিয়নের খৈয়াগাঁও-পূর্ব দেউলভোগ চকে ব্যাপক আলুর আবাদ হয়। এসব এলাকায় আক্রান্ত আলু জমিগুলোতে ফের আলু চাষের জন্য স্থানীয় কৃষকদের মাঝে কর্মব্যস্ততা শুরু হয়েছে।

কুকুটিয়ার মো. আলম হোসেন বলেন, তিনি ২ কানি জমিতে (প্রতিকানি জমি ১৪০ শতাংশ) আলুর বীজ বপনের তিনদিন পরেই টানা বৃষ্টি শুরু হয়। এতে জমি সব নষ্ট হয়ে গেছে। এখন অতিরিক্ত টাকা খরচ করে প্রয়োজনীয় সার, বীজ, চাষ, শ্রমিক মজুরি দিয়ে ফের আলু চাষ করতে হচ্ছে। এছাড়া খোলাবাজারে বীজ আলুর সঙ্কটের সৃষ্টি হয়েছে। এতে বীজসহ সারের দাম বেড়েছে।

রানা গ্রামের কৃষক শাহিন বলেন, ১ কানি জমি বৃষ্টির পানিতে ডুবে গেছে। ১০ হাজার টাকার বীজ আলুর বাক্স এখন ১৭ হাজার টাকায় কিনতে হচ্ছে।

প্রতিবস্তা সারে অতিরিক্ত ২০০ টাকা ধরা হচ্ছে। এতে সারের দোকানিরা কৃষককে কোনো ধরনের রশিদ দিচ্ছে না। এ অবস্থায় প্রতিকানি জমিতে আলু চাষে সার্বিকভাবে খরচ পড়বে কমপক্ষে আড়াই লাখ টাকা। ক্ষেত্র বিশেষ কিছুটা কম-বেশি হলেও হতে পারে এমনটাই বলেছেন ভুক্তভোগী আলু চাষিরা।

তন্তর এলাকার আলু চাষী মো. ইদ্রিস আলী বলেন, প্রায় ৫ কানি জমি নষ্ট হয়েছে। দুশ্চিন্তা মাথায় নিয়ে আক্রান্ত জমি পরিষ্কার করে চাষ দেওয়া হচ্ছে। কি করবো লোকসানের দুশ্চিন্তা মাথায় নিয়েই জমিতে পুনরায় বীজ বপন করতে হচ্ছে।

শ্রীনগর উপজেলা কৃষি অফিসার মোহসিনা জাহান তোরণ জানান, আক্রান্ত জমিগুলোতে পুনরায় আলু চাষ শুরু করছেন ক্ষতিগ্রস্তরা। মিগজাউমের প্রভাবে জলাবদ্ধতায় পানি নিষ্কাশনের জন্য জমিতে নালা করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। বৃষ্টির ফলে এ অঞ্চলে আলুসহ অন্যান্য রবিশস্য ও আগাম শাক-সবজির ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতির পরিমাণ সমন্ধে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে।

আজকালের খবর

Leave a Reply