জাপানে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০২৪ উদযাপন

রাহমান মনি, টোকিও: সূর্যোদয়ের দেশ জাপানে উদযাপিত হয়েছে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০২৪। দিবসটি পালন উপলক্ষে ২১ ফেব্রুয়ারি বুধবার বাংলাদেশ দূতাবাস জাপান দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করে। একুশের প্রভাতফেরিতে টোকিও শহীদ মিনারে প্রথমে রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমেদ দূতাবাস কর্মকর্তা, কর্মচারীদের নিয়ে রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে, এরপর তোশিমা সিটির ডেপুটি মেয়র কাতোসুমি আমাগাই স্থানীয় জাপানী প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহিদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। এরপর জাপানিজ সুহৃদ এবং প্রবাসী বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও আঞ্চলিক সংগঠন সমূহের নেতৃবৃন্দ পুস্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

অনুষ্ঠানের পরবর্তী অংশে দূতাবাস প্রাঙ্গনে প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিক এবং স্থানীয় জাপানি নেতৃবৃন্দের অংশগ্রহণে রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমেদ আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনার মাধ্যমে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করেন ।

পতাকা উত্তোলন শেষে ভাষা শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। আত্মার মাগফেরাত ও বাংলাদেশের উত্তরোত্তর উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত ও দোয়া করা হয়। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন প্রথম সচিব (লেবার) মোঃ জয়নাল আবেদিন ।

নীরবতার সাথে শ্রদ্ধা জানানো শেষে দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু অডিটোরিয়ামে শহীদদের আত্মার মাগফেরাত ও বাংলাদেশের উত্তরোত্তর উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত ও দোয়া করা হয়। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন প্রথম সচিব (লেবার) মোঃ জয়নাল আবেদিন ।

এরপর দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও ইউনেস্কোর ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল কর্তৃক প্রদত্ত বাণী সমুহ পাঠ করে শোনানো হয়। বাণীগুলি পাঠ করেন যথাক্রমে ইকোনমিক মিনিস্টার সৈয়দ নাসির এরশাদ, মিনিস্টার এবং ডেপুটি চিফ অফ মিশন শাহ আসিফ রহমান, মিনিস্টার (কমার্স ) ডঃ আরিফুল হক, মিনিস্টার (পলিটিক্যাল ) এবং দূতালয় প্রধান শেখ ফরিদ।

এরপর রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমেদ স্বাগত ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন।

রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমদ স্বাগত বক্তব্যে মহান ভাষা আন্দোলনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। তিনি ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান এবং ভাষা আন্দোলনের পটভূমি ও তাৎপর্য তুলে ধরেন। রাষ্ট্রদূত অমর একুশের চেতনাকে ধারণ করে মাতৃভাষা ও নিজস্ব সংস্কৃতির বিকাশসহ সকল জাতিগোষ্ঠীর ভাষা ও সংস্কৃতি রক্ষায় এগিয়ে আসার জন্য উপস্থিত সকলের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ বিনির্মাণের পথে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। রাষ্ট্রদূত প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ‘রূপকল্প ২০৪১’ বাস্তবায়নের মাধ্যমে একটি স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় সকলকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান।

রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য শেষে ‘মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ এর তাৎপর্যে উন্মুক্ত আলোচনায় জাপান বাংলাদেশ সোসাইটির প্রেসিডেন্ট মাসাতো ওয়াতানাবে, সাবেক জেওসিভি স্বেচ্ছাসেবী ওশিমা মুতোসুকো ও জাপান প্রবাসী বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

এরপর দিবসটির তাৎপর্যে “ভাষা আন্দোলন এবং বঙ্গবন্ধুর অবদান” শীর্ষক একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

সবশেষে আপ্যায়নের মধ্যদিয়ে দূতাবাস আয়োজিত অনুষ্ঠানমালা সমাপ্তি হয়।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মোহাম্মদ ইমরানুল হাসান, দ্বিতীয় সচিব (প্রেস) ।

Leave a Reply