লৌহজংয়ের ঘাসভোগ ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে খালের মাটি লুট

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে এক ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে রাতের বেলা সরকারি খালের মাটি লুট চলছে। এ জন্য বসানো হয়েছে খননযন্ত্র (ড্রেজার)। উপজেলার খিদিরপাড়া ইউনিয়নের ঘাসভোগ গ্রামে দীর্ঘদিন ধরে এ অবস্থা চলছে। এতে খালের পাশের কৃষকের জমি ভেঙে পড়ছে। তারা বারবার প্রতিবাদ জানিয়েও কোনো প্রতিকার পাচ্ছে না। পরে আদালত থেকে মাটি তোলায় নিষেধাজ্ঞা আনা হলেও তা মানছে না ওই প্রভাবশালী চক্রটি।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ঘাসভোগ এলাকার খালটি ডহরী-তালতলা খালের সঙ্গে সংযুক্ত। দুই খালের সংযোগস্থলেই শনিবার মিনি খননযন্ত্র দেখা যায়। পাশেই আদালতের নিষেধাজ্ঞার সাইনবোর্ড স্থাপন করা হয়েছে। খালের পাশের জমি মালিকরাও নিজ নিজ জমিতে লাল পতাকা ঝুলিয়ে রেখেছেন।

এলাকাবাসীর ভাষ্য, মাটি লুটের নেতৃত্বে রয়েছেন খিদিরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৮ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য শেখ বুলবুল আহমেদ, সোরহান মিয়া ও স্বপন নামের এক ব্যক্তি। সম্প্রতি লৌহজং উপজেলা প্রশাসন সেখান থেকে মাটি কাটতে নিষেধ করে। বৃহস্পতি ও শুক্রবার তারা রাতে মাটি তোলা শুরু করে। শুক্রবার রাত ১০টার দিকে মাটি কাটায় জড়িত খননযন্ত্রের শ্রমিকদের প্রতিহত করেন স্থানীয় কৃষকরা। পরে শ্রমিকরা পালিয়ে যায় বলে জানা গেছে।

কয়েকজন ভুক্তভোগী জানায়, স্থানীয় মোকাজ্জল নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে মাটি কেনার দাবি করেন শেখ বুলবুল, সোরহান মিয়া ও স্বপন। পরে ওই মাটি নিয়ে অন্য জায়গায় বিক্রি করছেন। তবে মোকাজ্জল ওই ব্যক্তিদের কাছে মাটি বিক্রির তথ্য অস্বীকার করেন।

এরই মধ্যে আবুল হাসেম, আবদুল হাকিম, রফি মিয়া নামের তিন ব্যক্তি ও তাদের স্বজনদের জমি খালে ভেঙে পড়েছে। তারা জানিয়েছেন, মাটি কাটতে বারবার মানা করেছেন। তবে ওই ব্যক্তিরা তা শুনছেন না। উল্টো তাদের হুমকি-ধমকি দিচ্ছেন।

ঘাসভোগের বাসিন্দা শিপন বলেন, ‘অনেক দিন ধরে খালে ড্রেজার বসিয়ে মাটি কাটছে বুলবুল মেম্বার, সোরহান আর স্বপন। তারা সারা বছরই খালের মাটি চুরি করে বিক্রি করে। এটাই তাদের পেশা।’ শুক্রবার রাতে মাটি কাটার সংবাদ পেয়ে গ্রামবাসী একত্র হয়ে বাধা দেন। এ সময় বুলবুল মেম্বারের ড্রেজার শ্রমিকরা পালিয়ে গেছে বলেও জানান তিনি।

একই এলাকার মো. শরীফও বলেন, এক সপ্তাহ ধরে মাটি কাটছে সোরহান ও বুলবুল মেম্বারের লোকজন। আগে দিনে মাটি কাটলেও এখন রাতে কাটা চলছে। এতে জমিজমার পাশাপাশি অনেকের বাড়িঘরও ভেঙে যাচ্ছে।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক আবদুল হাকিম বলেন, ‘মাটি কাটার লাইগ্যা আমাগো জমি ভাইঙ্গা পড়ছে। আমরা বারবার নিষেধ করছি। তারা কোনো কথাই শুনছে না।’
একই তথ্য জানিয়ে রফি মিয়া বলেন, তারা নিষেধ না মানায় সম্প্রতি তিনি আদালত থেকে নিষেধাজ্ঞা আনেন। তাও তারা মানছে না।

যেখান থেকে মাটি কাটা হচ্ছে সেটি সরকারি নয়, ব্যক্তিমালিকানাধীন বলে দাবি করেন ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শেখ বুলবুল আহমেদ। তবে তিনি এতে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেন।

লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন বলেন, স্থানীয়দের অভিযোগ পেয়ে ওই স্থানের ড্রেজারটি কিছুদিন আগে তারা বন্ধ করে দিয়েছিলেন। আবারও মাটি কাটলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সমকাল

Leave a Reply