শুভ্রতার প্রতীক মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার আট মিনারবিশিষ্ট নান্দনিক মসজিদ

মুন্সীগঞ্জ জেলা শহর থেকে পূর্বে গজারিয়া উপজেলার মেঘনা নদীর তীরবর্তী একটি গ্রাম ইসমানিরচর। এটি হোসেন্দী ইউনিয়নের একেবারে দক্ষিণ দিকের একটি জনপদ। এর পাশ দিয়ে বয়ে গেছে মেঘনা নদী। ১৯৪১ সালে গ্রামটিতে কয়েকজন ধর্মপ্রাণ মুসলমানের হাত ধরে নির্মিত হয় ইসমানিরচর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ।

কালের বিবর্তনে ধীরে ধীরে মুসল্লির সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় ওই জনপদের মুসলমানরা দীর্ঘ প্রায় ৮৪ বছর পর মসজিদটির পুনর্নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেন। পরে মসজিদ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি তাজুল ইসলাম খাঁনসহ গ্রামবাসীর হাত ধরে ৮ শতাংশ জমির উপরে ৫৫ স্কয়ার ফিট প্রস্থ ও ৫২ স্কয়ার ফিট দৈর্ঘ্যের তিনতলা বিশিষ্ট মসজিদটির পুনর্নির্মাণ শুরু হয় ২০১৮ সালে।

মসজিদের ভিতরে মোজাইক বিশিষ্ট কারুকার্যের মাধ্যমে সৌন্দর্য ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। যেখানে অ্যারাবিয়ান মসজিদগুলোর ডিজাইন অনুসরণ করে কারুকার্য করা হয়েছে। মসজিদটির ভিতরের মেহেরাব থেকে শুরু করে বাইরের আটটি মিনারেও চোখ জুড়ানো বিভিন্ন নকশা আঁকা হয়েছে, ফলে মসজিদটির সৌন্দর্য কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ৮ শতাংশ জায়গার ওপর রড, সিমেন্ট, সুড়কি ও ইট পাথর দিয়ে মসজিদটি তৈরির পর কারুকার্য আর সাদা রং দিয়ে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এর সৌন্দর্য। মসজিদের ছাদের উত্তর ও দক্ষিণ পাশে রয়েছে চারটি করে আটটি নয়নাভিরাম মিনার। তবে মাঝখানে আরও একটি বড় গম্বুজ তৈরি করার ইচ্ছে রয়েছে এলাকাবাসীর। মসজিদটির ভিতরে নিচতলায় বিভিন্ন ধরনের সুনিপুণ কারুকার্যের মেলবন্ধনে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। মূল প্রবেশদ্বার দরজার পূর্ব পাশে রয়েছে ওপরে ওঠার সিঁড়ি, যার মাধ্যমে দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় উঠে নামাজ আদায় করেন মুসল্লিরা। দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলার সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ শেষ না হলেও কর্তৃপক্ষ বলছে নিচতলার মতোই কারুশিল্পের নকশা থাকবে সেখানে। মসজিদটি নির্মাণে রাজমিস্ত্রী হিসাবে কাজ করেছেন রাজশাহীর মো. মোয়াজ্জেম হোসেন। তিনি এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নির্মাণ করে সাড়া ফেলেছেন।

এই মসজিদে নামাজ পড়তে আসা কয়েকজন মুসল্লির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মসজিদটি পুনরায় নির্মাণ করার আগে তারা চেয়েছেন জেলার সব থেকে সুন্দরতম মসজিদ তৈরি করতে। তাই দেশের বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে এক একটি মসজিদের ডিজাইন দেখে জ্ঞানলাভ করার চেষ্টা করেছেন তারা। সুন্দর মসজিদের খোঁজ করতে করতে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চর ডুমুরিয়ার সামারচর এলাকার একটি মসজিদের সন্ধান পান। পরে সেই মসজিদের আদলে নির্মাণ কাজ শুরু হয়। পরে মসজিদটির সৌন্দর্য আরও ফুটিয়ে তোলার জন্য সামারচরের মসজিদটির স্ট্রাকচার থেকে কিছুটা ডিজাইন পরিবর্তন করা হয়। ৮টি মিনার বিশিষ্ট মসজিদটি নির্মাণ করতে এখন পর্যন্ত আড়াই কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। মসজিদটিতে একসঙ্গে প্রায় ৩ হাজার মানুষ নামাজ আদায় করতে পারবেন। আশপাশের সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য আরও কিছু কাজ বাকি রয়েছে। আশপাশে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ সম্পন্ন হলে মসজিদটির সৌন্দর্য কয়েকগুণ বৃদ্ধি পাবে বলে দাবি নামাজ আদায় করতে আসা মুসল্লিদের।

তবে আল্লাহর ঘর নিয়ে তারা কোনো প্রতিযোগিতামূলকভাবে মসজিদটি নির্মাণ করেননি। এরইমধ্যে মসজিদটির নান্দনিক রূপ মুগ্ধ করেছে মুসল্লিসহ স্থানীয় বাসিন্ধাদের। প্রতিদিন এখানে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে পর্যটক আসেন মসজিদটি দেখতে। ইতোমধ্যে গজারিয়া উপজেলার সব থেকে সুন্দর মসজিদের তকমা পেয়েছে মসজিদটি। এ ছাড়া মুন্সীগঞ্জ জেলার সুন্দরতম মসজিদগুলোর মধ্যে সেরা ১০ এ জায়গা করে নিয়েছে।

পরিচালনা পর্ষদ বলছেন, মসজিদের পাশে থাকবে একটি ইসলামিক গ্রন্থাগার। যেখান ইসলামের জ্ঞান অর্জন করার সব ধরনের পবিত্র বই থাকবে। তা ছাড়া একটি হাফিজিয়া মাদ্রাসা তৈরি করারও পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।

মসজিদের সভাপতি মো. তাজুল ইসলাম খান জানান, মসজিদটি নির্মাণ করতে গিয়ে অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে তাদের। তারা দেশের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বিভিন্ন মসজিদ পরিদর্শন করে মুন্সীগঞ্জ জেলার শেষ্ঠ মসজিদ করার চেষ্টা করেছেন। এই মসজিদের আরও উন্নয়নে দেশের সকল ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের পাশে থাকার আহ্বান জানান তিনি।

কালবেলা

Leave a Reply