জৌলুস হারালেও কদর কমেনি শিমুলিয়া ঘাটের

মো. মাসুদ খান: পদ্মা সেতু চালুর পরপরই চিরচেনা জৌলুস হারিয়েছে মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের শিমুলিয়া ঘাট। একসময়ের ২৪ ঘণ্টা কর্মব্যস্ত এই ঘাট এখন নিস্তেজ প্রায়। লঞ্চঘাটে পন্টুন থাকলেও নেই লঞ্চ। ফেরিঘাটের পন্টুনগুলো এরই মধ্যে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

সিবোট ঘাটের পন্টুনও নেই। নেই হকারের ডাক-চিৎকার। বিশাল পার্কিং ইয়ার্ডে নেই বাস বা গাড়ির সারি। ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় নেই কোনো গাড়ি।

তবে এত কিছু না থাকার পরও দর্শনার্থীদের কাছে এর কদর এখনো কমেনি। প্রতিদিন পর্যটকদের কমবেশি আনাগোনা লেগেই আছে, বিশেষ করে বৃহস্পতি, শুক্র ও শনিবার সন্ধ্যায় এখানে পর্যটকদের ভিড় বেড়ে যায়। রাত যত গভীর হয় পর্যটকদের ভিড় ততই বাড়তে থাকে, বিশেষ করে তরুণ-তরুণীরা বেশি ছুটে আসে রাতের পদ্মা নদী আর পদ্মা সেতু দেখতে। সেই সঙ্গে হোটেল-রেস্টুরেন্টগুলো জমে ওঠে দর্শনার্থীদের ইলিশ খাওয়ানোর প্রতিযোগিতায়।

দর্শনার্থীদের কেন্দ্র করে শিমুলিয়া ৩ নম্বর ফেরিঘাটের কাছে ও পার্কিং ইয়ার্ডের একাংশে গড়ে উঠেছে দেশীয় লোকজ মেলা। এখানে বিক্রি হয় নানা ধরনের পিঠা, আলুর চিপস, পানিপুরি, তন্দুরি চা আর নানা মসলাদার পান। রাতের খাবারের জন্য রেস্টুরেন্ট পাড়ায় ইলিশ ভাজা খেতে ভিড় জমায় বেশির ভাগ পর্যটক। শিশুদের জন্য রয়েছে নানা রকমের খেলার আয়োজন। দর্শনার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঢাকার সিসাযুক্ত বাতাস থেকে বেরিয়ে একটু স্বস্তির নিঃশ্বাস নিতে ছুটির দিনগুলোতে অনেকে ছুটে আসে শিমুলিয়া ঘাটে।

কেউ আসে পরিবার-পরিজন নিয়ে, কেউ বা আসে বন্ধুবান্ধবসহ। তবে প্রেমিক যুগলের পদচারণ এখানে বেশি। দেশি পর্যটকের পাশাপাশি মাঝেমধ্যে বিদেশি পর্যটকদেরও দেখা যায় এখানে। শিমুলিয়া ঘাটে ঘুরতে আসা পুরান ঢাকার বাসিন্দা জামসেদ মিয়া জানালেন, ভারত থেকে এক আত্মীয় বেড়াতে এসেছেন তাঁর বাসায়। তাঁকে নিয়ে এসেছেন ইলিশ খাওয়াতে এবং রাতের পদ্মা সেতুর দৃশ্য দেখাতে। বিদেশি ওই পর্যটক পানিপুরি খেতে খেতে জানালেন, এটা স্বাদে ও মানে খুবই ভালো। তা ছাড়া জায়গাটিও বেশ ভালো লেগেছে।
ঢাকার উত্তরা থেকে সোহেল চৌধুরী সপরিবারে শিমুলিয়া ঘাটে বেড়াতে এসেছেন। তিনি জানালেন, সবাইকে নিয়ে এই শিমুলিয়া ঘাটে বেড়াতে এসেছেন। রাতে রেস্টুরেন্টে ইলিশ ভাজা খেয়ে বাড়ি ফিরবেন। প্রচণ্ড গরম, তবে পদ্মাপারে ফুরফুরে হাওয়ায় ঘুরতে বেশ ভালোই লাগছিল। এ রকম হাওয়া মনকে প্রশান্ত করে। সেই সঙ্গে পদ্মা সেতুর লাইটিং সেতুটিকে রাতের বেলায় বেশ ফুটিয়ে তুলেছে।

পানিপুরির দোকানি আরাফাত হোসেন জানান, বৃহস্পতি, শুক্র ও শনিবার এখানে পর্যটকদের ভিড় বেশি থাকে, তাই বেচাকেনাও বেশ ভালো হয়। পান দোকানদার আলতু মিয়া জানালেন, ১০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত দামের পান রয়েছে তাঁর কাছে। কিছু কিছু শৌখিন লোক ৫০০ টাকা দিয়েও পান খান। লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন বলেন, ‘ঘাটে এখন ফেরি পারাপার না থাকলেও পর্যটকদের কমবেশি সমাগম রয়েছে। রেস্টুরেন্টসহ ঘাটে পর্যটনকেন্দ্রিক বেশ কিছু দোকানপাটও গড়ে উঠেছে। এসব পর্যটকের নিরাপত্তায় বাংলাদেশ পর্যটন পুলিশ কাজ করছে। লৌহজং উপজেলা প্রশাসন পর্যটকদের সব ধরনের সহযোগিতা করতে সব সময় প্রস্তুত রয়েছে।’

কালের কণ্ঠ

Leave a Reply