দোকান খুললেই লাখ টাকা জরিমানার হুমকি চেয়ারম্যানের

মুন্সীগঞ্জ সদর উজেলার পঞ্চসার ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে একটি মার্কেটের ব্যবসায়ীদের কাছে পাঁচ কোটি টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে চেয়ারম্যানের ভয়ে মার্কেটটির প্রায় ৩০টি দোকান বন্ধ রয়েছে।

পঞ্চসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য গোলাম মোস্তফার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ এনে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন ইউনিয়নের মুক্তারপুর পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন লায়লা প্লাজা নামের নির্মাণাধীন মার্কেটের মালিক মৃত আমির হোসেনের ছেলে রিয়াদ হোসেন (৫৫)। তিনি গত রোববার রাতে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফাসহ চারজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরো ৪-৫ জনের নামে লিখিত এ অভিযোগ দেন।

রিয়াদ হোসেন জানান, পঞ্চসার ইউনিয়নের মুক্তারপুর পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন নিজেদের সম্পত্তিতে সাত তলাবিশিষ্ট একটি মার্কেট নির্মাণ শুরু করেন তাঁর বাবা। লায়লা প্লাজা নামের এ মার্কেট নির্মাণের শুরু থেকেই পঞ্চসার ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা তাঁর বাবার কাছে চাঁদা দাবি করে আসছিলেন। ইউপি চেয়ারম্যানের ভয়ভীতির কারণে ২০২৩ সালের ১১ আগস্ট তাঁর বাবা স্ট্রোক করে মারা যান। ইতোমধ্যে মার্কেট ভবনের নিচতলা পুরোপুরি নির্মিত হয়েছে। মার্কেটের নিচতলায় কাপড়, কসমেটিক ও ক্রোকারিজের ৩০টি দোকান ভাড়া দেওয়া হয়েছে। চলতি বছরের ২৭ মে চেয়ারম্যান মোস্তফা দলবল নিয়ে মার্কেট ভবনে গিয়ে অস্ত্রশস্ত্র প্রদর্শন করে দোকানদারদের হুমকি দেন। একই সঙ্গে পাঁচ কোটি টাকা চাঁদা দাবি করেন। চেয়ারম্যানের হুমকিতে ভয়ে গতকাল সোমবার পর্যন্ত মার্কেটের দোকানগুলো বন্ধ রেখেছেন দোকানদাররা।

ভুক্তভোগী রিয়াদ হোসেন বলেন, সামনে ঈদুল আজহা। মার্কেটের দোকান ভাড়া নেওয়া দোকানদারা এতে বিপাকে পড়েছেন। দোকান বন্ধ থাকায় ঈদ সামনে রেখে তাদের বেচাকেনায় ক্ষতি হচ্ছে। ইউপি চেয়ারম্যানের ভয়ে তারা দোকাপাট খুলতে সাহস পাচ্ছেন না। এ অবস্থায় তিনি ইউপি চেয়ারম্যানের হাত থেকে বাঁচতে থানা পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন। তিনি এর প্রতিকার চান।

রিয়াদ জানান, চেয়ারম্যান মোস্তফা বন্ধ থাকা দোকানদারদের দোকান না খোলার জন্য হুমকি দিচ্ছেন। দোকান খুললেই তাদের লাখ টাকা জরিমানা দিতে হবে বলে চেয়ারম্যান তাদের জনিয়ে দিয়েছেন। দোকানদাররা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কথা বলতে সাহস পাচ্ছেন না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফার অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে তারা অতিষ্ঠ। চেয়ারম্যান গ্রামের সহজ-সরল মানুষকে নানা সমস্যার মধ্যে ফেলে তাদের অনেকেরই জমি দখল করে নিয়েছেন।

অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা বলেন, রিয়াদ হোসেনের বাবা আমির হোসেন জীবিত থাকা অবস্থায় মার্কেট বিক্রি নিয়ে তাঁর সঙ্গে লেনদেন হয়েছিল। সে সময় তিনি আমির হোসেনের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ১ কোটি ৯০ লাখ টাকা দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি মারা যাওয়ার পর তাঁর ছেলে রিয়াদ বিষয়টি মানছেন না। তবে গ্রামের মানুষের জমি দখলের বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

সদর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। ঘটনার তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্ত শেষে অভিযোগ মামলায় নথিভুক্ত করা হবে।

সমকাল

Leave a Reply