গজারিয়ায় মাকে ফাঁস দিতে দেখে মেয়ের কান্নাকাটি, অতঃপর…

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় বসত ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার সকালে স্বামী রাকিবের বসতঘর থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়। গৃহবধূর মৃত্যু, হত্যা না আত্মহত্যা ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ওই গৃহবধূর মেয়ে নেহা বলে, আমরা বাবা মায়ের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছে। সকালে মাকে ফাঁসি দিতে দেখে আমি কান্নাকাটি শুরু করলে আমার চাচি বিউটি এগিয়ে আসেন। ঘরের ভেতর ঢুকে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে মাকে নামায়।

তবে ওই গৃহবধূর মায়ের অভিযোগ, তার মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে।

দুই সন্তানের জননী মৃত গৃহবধূ হালিমা আক্তার (২৫) উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের উত্তর ফুলদী পূর্ব পাড়া গ্রামের মো. রাকিব হোসেন প্রধানের স্ত্রী।

প্রতিবেশী ও স্থানীয় ইউপি সদস্য ফারুক হোসেন জানান, প্রায় ১০ বছর আগে উত্তর ফুলদী গ্রামের সিরাজুল ইসলাম প্রধানের ছেলে রাকিব হোসেন প্রধানের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী পানশালের চর গ্রামের রফিকুল ইসলামের মেয়ে হালিমা আক্তারের বিয়ে হয়। ১০ বছরের সংসার জীবনে তাদের নেহা নামে ৯ বছরের একটি কন্যা ও আলিফ নামে ৫ বছরের ছেলে সন্তান রয়েছে। রাকিব পেশায় একজন পিকআপচালক।

রাকিবের শাশুড়ি ডালিয়া বেগমের দাবি, রাকিব আগে তার কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা ধার নিয়েছিল। পরে তিনি রাকিবের কাছ থেকে ২৫ হাজার টাকা ধার নেন। হিসাব করলে তিনি রাকিবের কাছ থেকে আরও টাকা পাবেন। পাওনা টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই ঝগড়াঝাঁটি হতো। সর্বশেষ সোমবার রাতে বিষয়টি নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়াঝাঁটি হয়।

রাকিব তার স্ত্রীকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে বাড়ি থেকে বের হয়ে যেতে বলে। মঙ্গলবার সকালে রাকিব বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর বসতঘরে আড়ার সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় হালিমার লাশ দেখতে পান স্থানীয়রা।

নিহত গৃহবধূর মা ডালিয়া আক্তার বলেন, সকাল পৌনে ৬টার দিকে আমাকে ফোন করে জানানো হয়েছিল আমার মেয়ে স্ট্রোক করেছে। খবর শুনে আমরা মেয়ের শ্বশুর বাড়িতে ছুটে যাই, গিয়ে দেখি সে ফাঁস দিয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে আমরা তাকে গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

তিনি বলেন, এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড, বিষয়টি কৌশলে আড়াল করার চেষ্টা হচ্ছে। শ্বশুরবাড়ির লোকজন প্রথমে আমাকে ‘স্ট্রোক করেছে’ বলে জানালো কেন? তারা প্রথম থেকেই মূল ঘটনা আড়াল করতে চাইছে। আমি আমার মেয়ের হত্যাকারীদের বিচার চাই।

নিহতের স্বামী রাকিব হোসেন প্রধান বলেন, প্রতিটি পরিবারেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মতবিরোধ হয়ে থাকে, কেন সে এ কাজটি করল বুঝতে পারছি না।

তিনি বলেন, আমি কাঁচপুরে ছিলাম খবর পেয়ে আমি এলাকায় আসি।

এ বিষয়ে গজারিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মো. মহিদুল বলেন, খবর পাওয়ামাত্রই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

যুগান্তর

Leave a Reply