সিরাজদিখানে বিশেষ অঙ্গ কাটার পর স্বামীকে হাসপাতালে নিলেন স্ত্রী

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে সামিয়া বেগম (২৫) তার স্বামী রফিকুল সর্দারের (৩২) বিশেষ অঙ্গ কেটে দিয়েছেন। তিনি তখন ঘুমন্ত অবস্থায় ছিলেন। শুক্রবার রাত ৩টার দিকে উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের মধ্যপাড়া গ্রামের চিতাখোলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহতাবস্থায় রফিকুলকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।

রফিকুল মাদারীপুর সদর উপজেলার দুধখালী গ্রামের মৃত মতিন সর্দারের ছেলে। সামিয়া সিরাজদিখান উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের মধ্যপাড়া গ্রামের চিতাখোলা গ্রামের তমিজ উদ্দিন শেখের মেয়ে।

রফিকুল সর্দারের স্ত্রী সামিয়া বলেন, আড়াই বছর আগে আমাদের বিয়ে হয়েছে। বিয়ের পর থেকেই আমাকে নির্যাতন করত, অন্য মেয়ের সঙ্গে পরকীয়াও ছিল। নির্যাতন সইতে না পেরে রাগের মাথায় আমি এ কাজ করেছি।
তিনি জানান, বিশেষ অঙ্গ কাটার পর অসুস্থ স্বামীকে নিজেই হাসপাতালে নিয়ে যান। তাদের সংসারে ৭ মাসের একটি ছেলে রয়েছে।

মধ্যপাড়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. মাহমুদ হোসেন বলেন, সামিয়া বেগম তার বাবার বাড়িতে থাকেন। স্বামী রফিকুল পেশায় গাড়িচালক, মাঝে মধ্যে স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে শ্বশুরবাড়িতে আসেন। সংসারের খরচ ঠিকমতো বহন করতে না পারায় তাদের মধ্যে ঝগড়া হতো। এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার রাতে ঘুমন্ত রফিকুলের বিশেষ অঙ্গ ধারালো চাকু দিয়ে কেটে দেন সামিয়া।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আঞ্জুমান আরা বলেন, রফিকুলকে রাত ৪টার দিকে রক্তাক্ত অবস্থায় আমাদের কাছে নিয়ে এলে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে দ্রুত ঢাকায় পাঠিয়েছি।

সিরাজিদখান থানার ওসি মুজাহিদুল ইসলাম জানান, ঘটনাটি শুনেছি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুগান্তর

Leave a Reply